শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১১:০২ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
সৌদিতে হজে গিয়ে এখন পর্যন্ত ৬৪ বাংলাদেশির মৃত্যু ৩৫ বছর একটানা মসজিদের ইমামতি শেষে রাজকীয় বিদায় শাশুড়িকে বাঁ-চা-তে গিয়ে প্রা’ণ গেল বউয়ের ৪ জনের উমরা হজ্বসহ শতাধিক কৃতী শিক্ষার্থীকে পুরস্কৃত করলো বরুণা মাদরাসা তপোবন যুব ফোরামের উদ্যোগে দুই রেমিট্যান্স যোদ্ধাকে সংবর্ধনা সুনামগঞ্জে সুরমা নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে, বেড়েছে ভোগান্তি কোটা সংস্কারের নামে বিএনপি জামায়াতের সন্তানেরা মাঠে নেমেছে : নিখিল সিলেটে ‘বুঙ্গার-চিনি-কান্ডে’ পুলিশের হাতে আটক ৫ জনের পরিচয় জানা গেল বাংলাদেশে বিনিয়োগ থেকে সরে দাঁড়ালো কোকাকোলা! অনন্ত-রাধিকার বিয়ের অনুষ্ঠানে সস্ত্রীক ধোনি সিলেটে ‘বুঙ্গার চিনি’ কিনে আলোচনায় দুই ছাত্রলীগ নেতা মাত্র সাত মাসে কোরআনে হাফেজ হলেন ফাহিম আবারো সিলেটে বড় চালান ভারতীয় চোরাই ‘চিনি’ জব্দ শেষ মুহূর্তে অসাধারণ গোলে ফাইনালে ইংল্যান্ড চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী




স্বপ্নের বিসিএস ও কিছু কথা…

Screenshot 20240709 030502 Photo Editor - BD Sylhet News




কাজী জুবায়ের আহমদ:: কখনও পড়ালেখায় খারাপ ছিলাম না কিন্তু বিসিএস ক্যাডার হওয়ার স্বপ্নই দেখতাম না,কারণ সেই লেভেলের স্টুডেন্ট আমি ছিলাম না।

এস,এস,সি পাশ করার পরে যখন শহরে আসি পড়ালেখার জন্য তখন মেছেই থাকতাম। সৌভাগ্যক্রমে আমার রুমমেট দুই বড় ভাই পেয়েছি (পর্যায়ক্রমে) উনারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন।

উনাদের মধ্যে একজন আরিফুল আলম জুয়েল ভাই ন্যাশনাল ব্যাংকে চাকুরী করতেন সাথে বিসিএস এর জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন, আরেক জন মাহবুবুর রহমান ভাই ক্যান্টনমেন্ট স্কুলের ইংরেজির শিক্ষক ছিলেন তারপরও ভাই প্রতিদিন ১৬-১৮ ঘন্টা পড়ালেখা করেছেন বিসিএস এর জন্য তাদেরকে দেখে আমিও অনেক অবাক হয়েছি যে,একজন মানুষ এতোক্ষণ পড়েন কিভাবে।

আজকে দুজনই সফল আরিফুল আলম জুয়েল ভাই উপ কর কমিশনার ও মাহবুবর রহমান ভাই অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে কর্মরত আছেন।

আমি তো কোনদিন তাদের দেখিনি পড়াশুনার বাইরে এসব নিয়ে ভাবতে কিংবা ঘুণাক্ষরেও কথা বলতে।

পরিশ্রম করে গিয়েছেন অনবরত। একাগ্রতা, নিষ্ঠা, পরিশ্রম আর মেধা থাকলে তাকে কেউ আটকাতে পারে না- এটা আমি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি।যার জ্বলন্ত উদাহরণ এ দুজন, আমরা প্রিয় দুই বড় ভাই।

অন্যদিকে আমাদের স্কুলের সবচেয়ে মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে একজন হলেন ব্যাংকার Shamsher Alom Rahel ভাই ও আমার বন্ধু প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক Mamunur Rashid Rubel দুজন মানুষ অনেক পরিশ্রমী ও মেধাবী ছাত্র ছিলেন কিন্তু দুজন মানুষ বিসিএস ক্যাডার হতে পারেন নি।

অপরদিকে বন্ধুবর Chowdhury Mohammad Imran বাংলাদেশ ব্যাংকের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা সে যে চাকুরির পরীক্ষায় আবেদন করেছে সে চাকুরী পেয়েছে কিন্তু বিসিএস ক্যাডার হতে পারেনি।

এতোসব বলার অর্থ হলো কিছু অসাধু মানুষ অনৈতিকভাবে অর্থের মাধ্যমে অসাধু ব্যক্তিদের শরণাপন্ন হয়ে বিসিএস ক্যাডার হয়েছে সেসব মানুষ গুলো এদেশের ভালো চাইবে কিভাবে? তাই আমি মনে করি শুধুমাত্র ড্রাইভার নয় ড্রাইভার এর কাছ থেকে যারা প্রশ্নপত্র নিয়ে বিসিএস ক্যাডার হয়েছেন এবং তাদের আশ্রয় ও পশ্রয় দাতা সবাই সমান দোষী।

আমি বিশ্বাস করি ৩০ লক্ষ শহীদ ভাই বোন দের রক্ত ও দুই লক্ষ মা বোনদের ইজ্জতের বিনিময়ে আমাদের স্বাধীন বাংলাদেশের মধ্যে অসাধু, দুর্নীতিবাজ মানুষের ঠাঁই হবেনা, ইনশাআল্লাহ।

লেখক : কাজী জুবায়ের আহমদ
কর্মী, সিলেট জেলা ছাত্রলীগ।

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২৪
Design & Developed BY Cloud Service BD