বুধবার, ২৫ নভেম্বর ২০২০, ১২:০০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
ছাতকে মাস্ক ব্যবহার না করার অপরাধে ৭ পথচারীকে জরিমানা সিলেটে ডাকাতি মামলায় ১১ জনের ১০ বছর সশ্রম কারাদন্ড-জরিমানা চলমান কাজ শেষ হলে পরবর্তী কাজ পাবেন ঠিকাদার : প্রধানমন্ত্রী করোনা পরিস্থিতি খারাপ হলে সব দিক চিন্তা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের সিলেট জেলা কৃষক লীগের আনন্দ র‌্যালি অনুষ্ঠিত বৃহত্তর সিলেট পাথর ব্যবসায়ী-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে জাফলংয়ে বিশাল জনসভা বিশ্বনাথে মানবতা রক্তদান গ্রুপের উদ্যোগে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় হাসিনা-মোদি ভার্চুয়াল বৈঠকে ৪টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হতে পারে : মোমেন সিলেটে নববধূ হত্যা: স্বামীসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা কানাইঘাটে বাঘের থাবা ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার পুরস্কার বিতরণ উপজেলা পরিষদ এসোসিয়েশন সিলেট বিভাগের সভাপতি আশফাক,সম্পাদক ফজলুর সিলেটে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর বাই সাইকেল ও সেলাই মেশিন বিতরণ জাতীয় মহিলা সংস্থা সিলেটের চেয়ারম্যানের সাথে উপজেলার তথ্যসেবা কর্মকর্তার সৌজন্য সাক্ষাৎ সিলেট নগরীর কাজীটুলায় নববধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ,স্বামী পলাতক প্রয়ান দিবসকে সামনে রেখে শেষ হলো মাসব্যাপী ভবমেলা
cloudservicebd.com

সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর পূর্ণ বাস্তবায়নের দাবীতে বড়লেখায় নিসচা’র সংবাদ সম্মেলন

20201101 203054 - BD Sylhet News

বড়লেখা প্রতিনিধি::জনগনের প্রত্যাশিত সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর পূর্ণ বাস্তবায়ন চাই- এই দাবীতে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)- এর জরুরী সংবাদ সম্মেলন আজ ১ নভেম্বর রোববার সকালে সারাদেশে একযোগে অনুষ্ঠিত।তারই অংশ হিসাবে নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) বড়লেখা উপজেলা শাখার অস্থায়ী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।এ সময় নিসচা কেন্দ্রীয় কমিটির চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চনের পক্ষ থেকে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিসচা বড়লেখা উপজেলা আহ্বায়ক তাহমীদ ইশাদ রিপন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন নিসচা বড়লেখা উপজেলা শাখার যুগ্ম আহ্বায়ক মার্জানুল ইসলাম, সদস্য সচিব আইনুল ইসলাম, কার্যকরী কমিটির সদস্য আব্দুল আজিজ,আহমেদ নোমান, রমা কান্ত দাস, রাসেল আহমদ, নূর আলম মোহন, লিমন আহমদ সহ প্রমুখ।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, দীর্ঘ ২৭ বছর এ আন্দোলনে নিসচা’র অনেক সাফল্য ও অর্জন এসেছে। এসব সাফল্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে। তবে কোন প্রাপ্তিতেই নিসচা থেমে থাকেনি। সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে নিসচা শুরু থেকে একটি সময়োপযোগী আইনের দাবি জানিয়ে আসছিল। পাশাপাশি শুধু আইন করলে হবেনা সড়কে আইন মানতে মানুষকে সচেতন করার ওপর ও নিসচা জোর দিয়ে আসছিল।

সড়ক পরিবহন আইনটি নিয়ে আলোচনা শুরু হয় ২০১২ সাল থেকে। আইনের খসড়া সরকারি ওয়েবসাইটে উন্মুক্ত থাকে দীর্ঘদিন। জনগণের মতামত দেয়ার সুযোগ ও রাখা হয়েছিল। নিরাপদ সড়কের দাবিতে যেসব সংগঠন কাজ করে তাদের প্রতিনিধিরা ও মতামত দিয়েছেন। এছাড়াও সরকার বিভিন্ন সময় ১৯৮৩ সালে প্রণীত আইনটি ও সময় উপযোগী করার উদ্যোগ নিয়েছিল।

অনেকটা সময় পেরিয়ে সড়কের বিশৃঙ্খলা অবস্থার বাস্তব চিত্র এবং ২০১৮ সালের ২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাস চাপায় শহীদ রমিজ উদ্দীন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুইজন শিক্ষার্থী বাসচাপায় মর্মান্তিক মৃত্যুর প্রেক্ষিতে নিরাপদ সড়কের দাবিতে গড়ে ওঠা ছাত্র আন্দোলন এ আইনটি পাসের প্রক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে। অবশেষে কোন চাপের মুখে নতি স্বীকার না করে সরকার এই আইনটি জাতীয় সংসদে পাস করে ২০১৮ সালে। এর প্রায় ১৫ মাস পর ২০১৯ সালের ১ নভেম্বর থেকে আইনটি কার্যকর শুরু করে সরকার। প্রথম ১৪ দিন সহনীয় মাত্রায় এই আইনের প্রয়োগ ছিল। পরবর্তীতে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের দাবিতে আইন এর কয়েকটি বিষয়ে পরবর্তী ছয় মাস পর্যন্ত বিবেচনার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। পরবর্তীতে করোনার কারণে এই আইন যথাযথ প্রয়োগের সময়সীমা বৃদ্ধি করে এবং ৩১ ডিসেম্বর ২০ পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়।

কিন্তু লক্ষ্য করা যাচ্ছে সরকার নতুন সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ প্রয়োগে উদ্যোগ নেয় তখনই পরিবহন সেক্টরের একটি চক্র বাঁধার সৃষ্টি করে আসছে। তারা নতুন করে নানা ধরনের দাবিদাবা তুলে ধরে ধরছে। শুধু তাই নয় গণপরিবহন চলাচল বন্ধ করে জনগণকে ভোগান্তিতে ফেলে তারা। এমনকি নিসচা’কে তাদের প্রতিপক্ষ হিসেবে দাঁড় করাচ্ছে। যা সত্যিই দুঃখজনক।নিসচা মনে করে নতুন আইনের বিষয়ে তারা কোনো প্রস্তুতি ইচ্ছে করে নেয়নি এবং নিচ্ছেও না।

নিসচা দুঃখের সঙ্গে বলছে যে, সড়কে যদি শৃঙ্খলা না ফিরে আসে তাহলে কোন অবস্থাতেই সড়ক নিরাপদ হবে না। তাঁর প্রকৃত উদাহরণ এই করোনায় খালি সড়কে যে দুর্ঘটনা ঘটেছে। আমাদের চূড়ান্ত প্রত্যাশা দুর্ঘটনা মুক্ত সড়ক- নিরাপদ সড়ক প্রতিষ্ঠা করা। যতদিন এটি পূরণ না হবে ততদিন নিসচা’র কর্মীরা সড়কে আছে এবং থাকবে।

নতুন আইনে কেউ আইন ভঙ্গ না করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার শঙ্কা অমূলক। যারা অন্যায় করবেন তাদের শাস্তির আওতায় আনতেই হবে। পরিবহন মালিক হোক ও শ্রমিক হোক কারো চাপের মুখে নতি স্বীকার করা যাবে না। আইনের বাস্তবায়ন আটকে রাখা যাবেনা। মানুষকে জিম্মি করে সরকারকে বিব্রত করে কেউ যদি এই আইনের বাস্তবায়ন ঠেকানোর চেষ্টা করেন তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে। এটাই এখন আমাদের দাবি এবং সরকারের কাছে নিসচা জোর দাবি জানাচ্ছে আগামী ১ জানুয়ারি ২০২১ সাল হতে সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ এর পূর্ণ বাস্তবায়ন যেন করা হয়।এরপর যেন আর কোন সময় বৃদ্ধি না করা হয়।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০১৭ - ২০২০
Design & Developed BY Cloud Service BD