বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
সিলেটের ৩ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে যারা নির্বাচিত হয়েছেন হবিগঞ্জে দায়িত্ব পালনকালে সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারের মৃত্যু বিয়ানীবাজারে জাল ভোট দেওয়ার চেষ্টা: আটক ৫, ভোট গ্রহণ স্থগিত হঠাৎ বন্যার ঝুঁকিতে সিলেটসহ যে ৬ জেলা কোম্পানীগঞ্জে ধলাই নদীতে পাথর আনতে গিয়ে যুবক নিখোঁজ ঘূর্ণিঝড় রেমালের তান্ডবে সারা দেশে ২১ জনের মৃত্যু সকল বয়সের ভোটারদের পছন্দ আনারস প্রতিকের প্রার্থী স্মরণ সিলেটে শাহজালালের দুই দিনব্যাপী ওরস শুরু ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে পৌনে তিন কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎ–বিচ্ছিন্ন তাহিরপুরে কুপিয়ে মৃত ভেবে জঙ্গলে ফেল গেল যুবককে ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডবে ১১ জনের মৃত্যু সর্বজনীন পেনশন স্কিমে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভূক্তি বাতিলের দাবিতে সিকৃবিতে মানববন্ধন ভারতে শিশু হাসপাতালে আগুনে ৭ নবজাতকের মৃত্যু ভারতে মিলল বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়া ১৬ কেজি স্বর্ণ গণতান্ত্রিক শ্রম আইন প্রণয়নে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলুন: রাজেকুজ্জামান রতন




দুর্ভিক্ষ ও বুলেট-বোমার আতঙ্কের মধ্যে যেমন কাটবে গাজাবাসীর ঈদ

Untitled 10 copy 1 - BD Sylhet News




আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ক্ষুধায় নাজেহাল গাজাবাসী এবার ঈদের দিনেও থাকবেন বুলেট-বোমার আতঙ্কে। সঙ্গে থাকবে সব হারানোর বেদনা। এর মধ্যও পুরনো কাপড় সেলাই করছেন অনেকে। মিষ্টির বিকল্প হিসেবে তৈরি করছেন আটার বিস্কিট। যা খাবে শিশুরা।

ইসরাইলি বাহিনীর নির্মমতায় পুরো গাজাই যেনো ধ্বংসস্তুপ। ৬ মাসে ৩৩ হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে। যারা এখনো বেঁচে আছেন, রোজায় সেহেরি আর ইফতারে খাওয়ার মতো ভালো কিছুই পাননি। এমন বাস্তবতার মাঝেই এসেছে ঈদ।

হামলা বন্ধ বা যুদ্ধবিরতির লক্ষণও দেখা যাচ্ছে না। ইসরাইলি সেনাদের অত্যাচারে আতঙ্কে ঈদের দিন কাটবে গাজাবাসীর। গাজার এক বাসিন্দা বলেন, ‘ঈদ নেই এখানে। কেনার মতো কিছুই নেই। আর কিছু পেলেও সামর্থ্য নেই। ইসরাইলি বাহিনীর আগ্রাসনের আগে, আমরা ঈদের জন্য মিষ্টি, জামাকাপড় কিনতাম। সব ধরনের প্রস্তুতি নিতাম। এখন তাঁবুতে থাকি, নিজের বাড়িঘর নেই। খুব খারাপ অবস্থায় আছি।’

ঈদের জন্য হাতেই বিস্কিট বানাচ্ছেন দেইল আল বালা শহরের বাস্তুচ্যুত নারীরা। ছিঁড়ে যাওয়া পুরোনো কাপড় সেলাই করে নিচ্ছেন অনেকে। কারও তাও করার সামর্থ্য নেই।

গাজার এক ফিলিস্তিনি নারী বলেন, ‘বাচ্চাদের জন্য মিষ্টান্ন হিসেবে বিস্কিট বানিয়েছি। কিন্তু ঈদের জন্য জামা-কাপড় নেই। আমার মেয়ে বড় হয়েছে, তার জন্যও কোনো কাপড় নেই। সব ছিঁড়ে গেছে।’

জামা-জুতা কিংবা ভালো খাবার নয়, যুদ্ধ বন্ধের মধ্যেই ঈদের আনন্দ খুঁজছেন গাজাবাসী। এক বাসিন্দা বলেন, ‘ঈদ… যুদ্ধে আবার কেমন ঈদ। এখানে কোনো ঈদুল ফিতর নেই, নেই ঈদুল আজহা। আমাদের জন্য ঈদ মানে যুদ্ধ ও আগ্রাসনের সমাপ্তি।’

এখনো যুদ্ধবিরতির অপেক্ষায় আছেন গাজার মানুষ। আশা, শিগগির শেষ হবে ইসরাইলের আগ্রাসন।

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২৪
Design & Developed BY Cloud Service BD