সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১০:২৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
সিলেটে অনুষ্ঠিত হলো চাকরি উৎসব বিদ্যুতের মূল্য স্থিতিশীল রাখা ও গ্যাসের মিটারের ভাড়া মওকুফ করার দাবীতে স্মারকলিপি প্রদান মঙ্গলবার বড়লেখায় সিএনজি উদ্ধার, ৪ ছিনতাইকারী গ্রেপ্তার জ্বালানি তেল-খাদ্যপণ্য মিয়ানমারে পাচারকালে ৬ পাচারকারী আটক জালালাবাদ গ্যাস টি এ্যান্ড ডি সিস্টেম লিমিটেড’র বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন জাতীয় পর্যায়ে গণসঙ্গীত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করবে বড়লেখার দুই ক্ষুদে শিল্পী বেইলি রোডে ঘটনায় মাধবপুরের সেই মা-মেয়ের অন্তেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন শাবিতে চালু হচ্ছে ডিজিটাল এটেনড্যান্স সিস্টেম সবাইকে শেখ হাসিনার উন্নয়নের পক্ষে কাজ করতে হবে: সিলেটে প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী দেশে মোট ভোটার ১২ কোটি সাড়ে ১৮ লাখ লাউড় ও বৌলাই চত্তরসহ তাহিরপুরের কয়েকটি স্পষ্টের নতুন নামকরণ কুয়েতে ৪ মাস ধরে বাংলাদেশি নিখোঁজ, সন্ধান চায় স্বজনরা বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির গণবিরোধী সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করুন: বাম জোট ১ম দিনু স্মৃতি ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধন মন্ত্রিসভার সদস্য হিসেবে শপথ নেবেন যে ৭ জন




রাতে নিখোঁজ যুবক, সকালে বাড়ির পাশে মরদেহ উদ্ধার

11693 - BD Sylhet News




বিডিসিলেট ডটকম : সিলেটের ওসমানীনগরে গলায় দড়ি দিয়ে ফাঁস লাগানো অবস্থায় ইকবাল হোসেন (৩০) নামের এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা এ নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। ইকবাল হোসেন উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের কাবাড়িপাড়া গ্রামের আলখাছ মিয়ার ছেলে।

রোববার (৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে নিজ বাড়ির পাশে পুকুরপাড়ে ছোট একটি আম গাছের সাথে গলায় দড়ি এবং মাঠিতে পা রাখা অবস্থায় তার মরদেহ দেখতে পান পিতা আলখাছ মিয়া।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতলে প্রেরণ করে।

ইকবালের মামা জয়নাল আবেদিন বলেন, শনিবার রাত ৮টার পর থেকে ইকবালের কোনো সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না। সন্ধ্যার পরে তার ফোনে কল আসলে সে বাড়ি থেকে বেড়িয়ে যায়। আমরা সকল আত্মীয়-স্বজনের বাড়িতে খোঁজাখুঁজি করেও তার কোনো খোঁজ পাইনি। আজ রোববার সকালে তার মরদেহ পাওয়া গেছে।

ইকবাল হোসেন পিতা আলখাছ মিয়া বলেন, তিন ভাইয়ের মধ্যে ইকবাল ছিল সবার বড়। ছোট ভাই যুক্তরাজ্য প্রবাসী হওয়ায় সেখানে যাওয়ার পরিকল্পনা ছিল তার। কিন্তু তা আর হলো না। আমার ছেলেকে কেউ পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে গাছের সাথে দড়ি দিয়ে মরদেহ রেখে গেছে। গলায় দড়ি থাকলেও আমার ছেলের পা ছিল মাটিতে। মাটিতে পা রেখে কেউ ঝুলন্ত অবস্থায় অত্মহত্যা করতে পারে না। সঠিক তদন্তের মাধ্যমে বিষয়টির রহস্য উদঘাটন করতে প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছি।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ওসমানীনগর সার্কেল) মো. আশরাফুজ্জামান বলেন, মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনাটি খতিয়ে দেখা যাচ্ছে। তদন্তসাপেক্ষে বিস্তারিত বলা যাবে।

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২৩
Design & Developed BY Cloud Service BD