বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৩:৪৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
সিলেটের ৩ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে যারা নির্বাচিত হয়েছেন হবিগঞ্জে দায়িত্ব পালনকালে সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারের মৃত্যু বিয়ানীবাজারে জাল ভোট দেওয়ার চেষ্টা: আটক ৫, ভোট গ্রহণ স্থগিত হঠাৎ বন্যার ঝুঁকিতে সিলেটসহ যে ৬ জেলা কোম্পানীগঞ্জে ধলাই নদীতে পাথর আনতে গিয়ে যুবক নিখোঁজ ঘূর্ণিঝড় রেমালের তান্ডবে সারা দেশে ২১ জনের মৃত্যু সকল বয়সের ভোটারদের পছন্দ আনারস প্রতিকের প্রার্থী স্মরণ সিলেটে শাহজালালের দুই দিনব্যাপী ওরস শুরু ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে পৌনে তিন কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎ–বিচ্ছিন্ন তাহিরপুরে কুপিয়ে মৃত ভেবে জঙ্গলে ফেল গেল যুবককে ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডবে ১১ জনের মৃত্যু সর্বজনীন পেনশন স্কিমে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভূক্তি বাতিলের দাবিতে সিকৃবিতে মানববন্ধন ভারতে শিশু হাসপাতালে আগুনে ৭ নবজাতকের মৃত্যু ভারতে মিলল বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়া ১৬ কেজি স্বর্ণ গণতান্ত্রিক শ্রম আইন প্রণয়নে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলুন: রাজেকুজ্জামান রতন




মাধবপুরে শিক্ষকের বেতের আঘাতে শিক্ষার্থী গুরুতর জখম

FB IMG 1692202568505 - BD Sylhet News




বিডিসিলেট প্রতিবেদক : হবিগঞ্জের মাধবপুরে শিক্ষকের বেতের আঘাতে এক স্কুল শিক্ষার্থীর চোখে গুরুতর জখম হয়েছে। আহত শিক্ষার্থীর নাম মেহেদি হাসান (০৪)। সে চৌমুহনী ইউনিয়নের বানিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু শ্রেণির শিক্ষার্থী ও একই গ্রামের মোতালিব মিয়ার ছেলে। বর্তমানে শিশু মেহেদি আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকার আগারগাঁও চক্ষু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জাকিরুল হাসান জানান, আজ বৃহস্পতিবার (১৭ আগস্ট) ওই ক্লাস্টারের সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তাকে সাথে নিয়ে সরজমিন গিয়ে ঘটনার খোঁজ নেবেন।

জানা যায়, গতকাল বুধবার (১৬ আগস্ট) বিদ্যালয় চলাকালীন বানিয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোর্শেদা বেগম ‘দুষ্টুমি করার অভিযোগে’ শ্রেণিকক্ষে অবস্থানরত মেহেদি হাসানকে লক্ষ্য করে সজোরে তার হাতে থাকা বাঁশের বেত ছুড়ে মারেন। এটি মেহেদি হাসানের ডান চোখে গিয়ে আঘাত করে। এতে মেহেদি হাসানের চোখ রক্তাক্ত জখম হয়। বর্তমানে মেহেদি হাসান ঢাকাস্থ আগারগাঁও চক্ষু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে তার পিতা মোতালিব মিয়া জানিয়েছেন।

চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে মোতালিব মিয়া জানান, মেহেদি হাসানের চোখের অবস্থা ভালো নয়। বর্তমানে তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। তিনি শিক্ষক মোর্শেদার এমন অমানবিক আচরণের বিচার দাবি করেছেন।

অভিযুক্ত শিক্ষক মোর্শেদা বেগমের মোবাইলে বারবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জাকিরুল হাসান জানান, ‘অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনা সম্পর্কে জানতে আমি নিজে আজ বিদ্যালয়ে যাব।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনজুর আহ্সান জানান, ‘বিষয়টি খুবই দুঃখজনক। শিক্ষা কর্মকর্তাকে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে বলেছি।’

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২৪
Design & Developed BY Cloud Service BD