শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল ফজল স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত যাদুকাটা নদীর চর থেকে বালুচাপা অবস্থায় শিশুর মরদেহ উদ্ধার সং’ঘ’র্ষ ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ধান শুকানোর খলা দ’খ’ল নিয়ে, আহত ৫০ সড়ক দুর্ঘটনায় শিল্পী পাগল হাসান সহ নিহত ২ সিলেটে ব্যবসায়ী হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন শিল্পী সমিতির নির্বাচনে লড়ছেন যেসব তারকা আইএসইউ উপাচার্য পদে পুনরায় নিয়োগ পেলেন অধ্যাপক ড. আউয়াল বর্ষণে ডুবল দুবাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, ঢাকামুখী ৯ ফ্লাইট স্থগিত মালয়েশিয়ায় ২৩ বাংলাদেশিসহ আটক ২৬ দু’দিন বন্ধ থাকবে সিলেট তামাবিল স্থলবন্দরের সব কার্যক্রম সিলেটে সিএনজি ফিলিং স্টেশন বিভাগীয় কমিটির জরুরী সভা শনিবার সিকৃবিতে মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত সিলেটে শিলাবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে ঢেউটিন দিলেন প্রবাসী জাবেদ ঈদুল আযহার সম্ভাব্য তারিখ ঘোষণা করলো সৌদি আরব মাধবপুরে চুরির মামলায় বিএনপি নেতা কারাগারে




কেন্দ্রীয় সরকার ও বিএসএফের মদদে সীমান্তে হত্যা

BORDER hk samakal 631b331c48635 samakal 64ca50977e8f2 - BD Sylhet News




আন্তর্জাতিক ডেস্ক : খোদ বিধানসভায় দাঁড়িয়ে সীমান্তে বিএসএফের অত্যাচার ও সীমান্ত হত্যা নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন পশ্চিমবঙ্গের সীমান্তবর্তী এলাকা ভগবানগোলার বিধায়ক, তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ইদ্রিস আলী। ডেপুটি স্পিকার শ্রী আশিষ ব্যানার্জির দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার ও বিএসএফের মদদে সীমান্ত এলাকায় ব্যাপক পরিমাণে গরুপাচার চলছে। বিএসএফ ও কেন্দ্রীয় সরকারের মদদ ছাড়া গরুপাচার সম্ভব নয়।

তিনি বলেন, সীমান্ত এলাকায় বিএসএফের অত্যাচার নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিধানসভায় মুখ খোলার পর কিছুদিন মানুষের ওপর অত্যাচার কমেছিল। সম্প্রতি সীমান্তে বিএসএফের পরিধি বাড়ার পর বিএসএফের বাড়বাড়ন্তও বেড়েছে। মানুষের ওপর ব্যাপকভাবে অত্যাচার বেড়েছে। কুকুর ছাগলের মতো গুলি করে মানুষ হত্যা করা হচ্ছে।

তার অভিযোগ- সীমান্ত এলাকার জিরো পয়েন্টে অনেক ভারতীয় নাগরিকের জমি আছে। সীমান্ত এলাকার কৃষকদের সেই জমিতে চাষাবাদ করতে যেতে বাধা দেওয়া হচ্ছে। ভারতীয় নাগরিক হয়ে তারা নিজের জমিতে চাষ করতে পারছেন না। এ বিষয়ে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যও বিধানসভায় দাবি জানান তিনি।

তিনি বলেন, সীমান্ত এলাকার এই সমস্যা নিয়ে বিরোধী বিজেপি বিধায়করা কেন মুখ খুলছেন না। তার অভিযোগ কেন্দ্রীয় সরকার ও বিএসএফের সঙ্গে বিজেপি বিধায়করাও এই গরু পাচারের মদদদাতা। তারা চুরি করবে, ডাকাতি করবে, আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে আঙুল তুলবে এমনটা চলতে পারে না। এমনটা চালানোর চেষ্টা করা হলে ২০২৪ সালে বিজেপির দুর্গতির শেষ থাকবে না, মোদিজির সরকার পড়ে যাবে।

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২৩
Design & Developed BY Cloud Service BD