রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৫:১৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
আমেরিকা ইমিগ্রেন্ট ভিসা সংক্রান্ত সেমিনার আগামী ৭ জুন বিকেলে ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নেবে গভীর নিম্নচাপ, উত্তাল সাগর গ্রীষ্মকালীন ও ঈদুল আজহার ছুটিতে ২৮ দিন বন্ধ থাকছে শাবিপ্রবি এমপির ছেলে এমপি হোক আমি চাইনা: ব্যারিস্টার সুমন সুনামগঞ্জে ফুটবল খেলা নিয়ে দু’পক্ষের সংর্ঘষে আহত ৩০ জৈন্তাপুরে কথা কাটাকাটি নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৬ মেয়র আনোয়ারুজ্জামানকে সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের অভিনন্দন সিসিকের হোল্ডিং ট্যাক্স বাতিল, রি-এসেসমেন্টের সিদ্ধান্ত যুক্তরাজ্যের লোওয়েস্টফ্টে প্রথম মেয়র হলেন জগন্নাথপুরের নাসিমা সিলেটে আরেকটি কূপে মিলল গ্যাসের সন্ধান জৈন্তাপুরে ফেনসিডিলসহ নারী আটক তীব্র গরমে বিশুদ্ধ পানি ও স্যালাইন বিতরণ করছে তপোবন যুব ফোরাম প্রধানমন্ত্রী ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট ও সোনার বাংলাদেশে পরিণত করতে চান: এড. নাসির খান জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় কৃষি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে: কৃষিমন্ত্রী শ্রীমঙ্গলে মুখে বিষ ঢেলে প্রতিবন্ধী শিশু সন্তান হত্যা, বাবা-মা আটক




সিলেটে ২২ বছর পর হত্যা মামলার রায়, ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড

1690190703.bg - BD Sylhet News




সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলায় চাঞ্চল্যকর তমজিদ আলী হত্যা মামলার দীর্ঘ ২২ বছর পর চার আসামির মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। এ রায়ে প্রত্যেক আসামিকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

সোমবার (২৪ জুলাই) দুপুরে সিলেটের বিভাগীয় স্পেশাল জজ আদালতের বিচারক আব্দুল্লাহ আল মামুন এ আদেশ দেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- গোয়াইনঘাট উপজেলার ইটাচকি গ্রামের আব্দুর রব, একই গ্রামের ইদ্রিছ আলীর ছেলে আব্দুর রহমান, পার্শ্ববর্তী ইস্তি গ্রামের আব্দুল হান্নানের ছেলে রইছ আলী ও নুর মিয়ার ছেলে ফজল উদ্দিন।

এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন আদালতের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর মো. ফখরুল ইসলাম ও পেশকার মো. আহমদ আলী।

তারা জানান, এ মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত চার আসামি জামিনে ছিলেন। আজ তারা আদালতে হাজিরা দিতে এলে রায় শোনানোর পর কারাগারে পাঠানো হয়। এছাড়া এ মামলায় মোট ১৫ আসামির ১০ জনকে খালাস দেওয়া হয় এবং সাজিদুর হক নামের এক আসামি বিচার চলাকালে মৃত্যুবরণ করেন।

মামলার বরাত দিয়ে আদালত সূত্র জানায়, ২০০১ সালের ৮ আগস্ট সকাল সাড়ে ৬টায় সিলেটের গোয়াইনঘাটে ইস্তি গ্রামে খাল দখলকে কেন্দ্র করে হাত-পা বেঁধে দা দিয়ে কুপিয়ে জেলে তমজিদ আলীকে হত্যার পর মরদেহ হাওরে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা। ঘটনার পরদিন নিহতের স্ত্রী পেয়ারা বেগম ১৫ জনকে আসামি করে থানায় হত্যা মামলা (নং-৬ (৮)০০১) দায়ের করেন। পরবর্তীতে তদন্তকারী কর্মকর্তা ২০০২ সালের ২ মার্চ চার্জশিট দাখিল করেন। ২০০৩ সালের ৫ নভেম্বর সম্পূরক চার্জশিট দাখিল করেন সদর সার্কেল এএসপি সিদ্দিকী তানজিলুর রহমান।

মামলাটি জিআর ৭৭/২০০১ মূলে আদালতে রেকর্ড করা হয়। ২০০৪ সালে এ আদালতে দায়রা ৩/২০০৪ মূলে রেকর্ড করে বিচার শুরু হয়। মামলায় দীর্ঘ শুনানিতে ২২ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৬ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বিচারক আজ এ হত্যা মামলায চারজনের মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। একইসঙ্গে প্রত্যেক আসামিকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানাও করা হয়। সেসঙ্গে অন্য সব আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

মামলায় আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকটে ওবায়দুর রহমান। আর রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর মো. ফখরুল ইসলাম।

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২৪
Design & Developed BY Cloud Service BD