বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
সিলেটের ৩ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে যারা নির্বাচিত হয়েছেন হবিগঞ্জে দায়িত্ব পালনকালে সহকারী প্রিসাইডিং অফিসারের মৃত্যু বিয়ানীবাজারে জাল ভোট দেওয়ার চেষ্টা: আটক ৫, ভোট গ্রহণ স্থগিত হঠাৎ বন্যার ঝুঁকিতে সিলেটসহ যে ৬ জেলা কোম্পানীগঞ্জে ধলাই নদীতে পাথর আনতে গিয়ে যুবক নিখোঁজ ঘূর্ণিঝড় রেমালের তান্ডবে সারা দেশে ২১ জনের মৃত্যু সকল বয়সের ভোটারদের পছন্দ আনারস প্রতিকের প্রার্থী স্মরণ সিলেটে শাহজালালের দুই দিনব্যাপী ওরস শুরু ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে পৌনে তিন কোটি গ্রাহক বিদ্যুৎ–বিচ্ছিন্ন তাহিরপুরে কুপিয়ে মৃত ভেবে জঙ্গলে ফেল গেল যুবককে ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডবে ১১ জনের মৃত্যু সর্বজনীন পেনশন স্কিমে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তর্ভূক্তি বাতিলের দাবিতে সিকৃবিতে মানববন্ধন ভারতে শিশু হাসপাতালে আগুনে ৭ নবজাতকের মৃত্যু ভারতে মিলল বাংলাদেশ থেকে পাচার হওয়া ১৬ কেজি স্বর্ণ গণতান্ত্রিক শ্রম আইন প্রণয়নে ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন গড়ে তুলুন: রাজেকুজ্জামান রতন




তরুণী প্রেমের টানে মালয়েশিয়া থেকে বাংলাদেশে

FB IMG 1688210509149 - BD Sylhet News




বিডি সিলেট ডেস্ক:: প্রেমের টানে হাজার হাজার মাইল পাড়ি দিয়ে নোয়াখালীর প্রেমিক ফরহাদ হোসেনের কাছে ছুটে এসেছেন মালয়েশিয়ান তরুণী স্মৃতি আয়শা বিন রামাসামি (২২)। আদালতে এফিডেভিটের মাধ্যমে গত ২৫ জুন বিয়ে করে ঘর বাধঁলেন প্রেমিক-প্রেমিকা।

প্রেমিক ফরহাদ (২৬) চৌমুহনী পৌরসভার হাজীপুর এলাকার কবির হোসেনের ছেলে। বিয়ের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে নবদম্পতিকে দেখতে বাড়িতে উৎসুক মানুষের ভিড় জমেছে।

জানা গেছে, ফরহাদ হোসেন প্রায় পাঁচ বছর মালয়েশিয়ার একটি কোম্পানিতে কাজ করতো। চলতি বছর কাজ শেষে দেশে চলে আসে। ওই কোম্পানিতে চাকরির করার সময় পরিচয় হয় আয়েশার সঙ্গে। পরিচয় থেকে ধীরে ধীরে প্রণয়। দেশে চলে আসার পর ফরহাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ ছিল আয়েশার। একপর্যায়ে তারা দুজনই বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেয়। প্রেমিক পাগল স্মৃতি গত ২৪ জুন ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছলে ফরহাদ তাকে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নিয়ে আসে। পরদিন ২৫ জুন তাদের বিয়ে হয়।

ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘আমি মালয়েশিয়ায় চাকরি করার সময় স্মৃতির সঙ্গে পরিচয় হয়। পরিচয় থেকে ভালোবাসা। আমাদের দীর্ঘ সাড়ে চার বছরের সম্পর্ক। আমি বাড়ি আসার পর আমার ভালোবাসার টানে সে বাংলাদেশে চলে আসে। মালয়েশিয়ার আইন অনুযায়ী স্মৃতি প্রাপ্ত বয়স্ক। সে নিজেই সিদ্ধান্ত নিয়ে বাংলাদেশে এসেছে। আমরা এখানে বিয়ে করেছি। এতো আমরা দুইজন ও আমার পরিবারের সবাই খুশি।’

ভাঙা ভাঙা বাংলায় আয়েশা বলেন, ‘ফরহাদ আমাকে ভালোবাসে, আমি তাকে ভালোবাসি। বাংলাদেশকে ভালোবাসি। এখনাকার সবাই ভালো। খাবার ও পরিবেশ ভালো লেগেছে। পরিবারের সবাই আমাকে আপন করে নিয়েছেন।’

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২৪
Design & Developed BY Cloud Service BD