সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
আইসিইউতে ভর্তি বিএনপি নেতা মঈন খান পুকুরে টাকা ডুবলেই ‘স্বপ্ন পূরণ পানির নিচে খাদেমের কারসাজি’ সিলেট নগরীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু সিলেটে কুড়িয়ে পাওয়া শিশু উর্মির অভিভাবকের সন্ধান চায় পুলিশ বিশ্বকাপ ট্রফি ৫১ দেশের উদ্দেশে যাত্রা শুরু ‘এখানে কিছু টাকা আছে, এটা দিয়ে আমার দাফন-কাফন করিও’ সিলেটে পাহাড়ি ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, দুর্ভোগে মানুষ সিলেটে গাঁজাসহ মাদক কারবারি আটক বড়লেখায় বর্হিবিশ্ব জাতীয়তাবাদী ফাউন্ডেশন নেতৃবৃন্দদের সংবর্ধনা প্রদান হবিগঞ্জে ভারতীয় চাপাতাসহ চোরাকারবারি আটক সোমবার টিসিবির পণ্য বিক্রি স্থগিত জকিগঞ্জে নদীভাঙ্গন পরিদর্শনে বীরমুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে নিরাপত্তা জোরদারে বিজিবি মোতায়েন নায়িকার জন্যই ভাঙল সোহেল-সীমার ২৪ বছরের সংসার! গোলাপগঞ্জে ৬ প্রতিষ্ঠানকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা




গোলাপগঞ্জে ৫ প্রতিষ্ঠানকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা

WhatsApp Image 2022 04 18 at 4.00.24 PM.jpeg - BD Sylhet News




নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেটের গোলাপগঞ্জে কাপড়ের গায়ে সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য লেখা না থাকায় ৫ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করেছে জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

সোমবার ( ১৮ এপ্রিল) গোলাপগঞ্জে মোট ৫ প্রতিষ্ঠানকে মোট ১০হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর সিলেট জেলা কার্যালয় সূত্র জানায়, ১ হাজার টাকায় কেনা কাপড় দাম চাওয়া হয় ৫ হাজার টাকা । ভোক্তাদের সাথে দাম কষাকষি করে তা বিক্রি হয় কখনও ৪ হাজার টাকায় আবার কখনও ১৫শত টাকায়। বছরের পর বছর ধরে সিলেটের বিভিন্ন কাপড়ের বাজারে এভাবেই চলছে বেচাঁকেনা। ফলে কাপড় কিনতে গিয়ে হরহামেষাই হিমসিম খেতে হয় সাধারণ ভোক্তাদের। দরকাষাকষি না করতে পেরে অনেকেই হয়তো দ্বিগুন তিনগুন দামে কাপড় কিনে হচ্ছেন ক্ষতির সম্মুখীন আবার অনেকে একাধিক দোকান যাছাইবাচাইয়ের মাধ্যমে দরকষাকষি করে যথাযথ দামে কাপড় কিনতে পারলেও ব্যয় হচ্ছে অতিরিক্ত সময় ও শ্রম।

ভোক্তাদের এ ধরণের হয়রানি ও প্রতারণা থেকে মুক্তি দিতে অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের নির্দেশে সাড়া দেশের ন্যায় সিলেটেও কাপড়ের দোকানে অভিযান শুরু করেছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। কাপড়ের গায়ে কোনো গোপন কোড নয় বরং সর্বোচ্চ খুচরা বিক্রয় মূল্য লেখা নিশ্চিত করতে সোমবার দিনব্যাপী গোলাপগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন মার্কেটে অভিযান চালিয়েছে অধিদপ্তরের জেলা কার্যালয়। অভিযান চলাকালে কাপড়ের দোকানে দাবিকৃত বিক্রয়মূল্যের সাথে ক্রয় রশিদে উল্লেখিত মূল্যের অসামঞ্জস্য, ক্রয় রশিদ প্রদর্শন করতে না পারা, অতিরিক্ত মূল্যে কাপড় বিক্রি করা, এবং কাপড়ের গায়ে স্টিকারে সর্বোচ্চ বিক্রয়মূল্য না লেখে বিভিন্ন গোপন কোড লিখে রাখার অপরাধে প্রাথমিক অবস্থায় সতর্কতামূলক কার্যক্রম হিসেবে তামান্না এন্ড আমিনা ফ্যাশনকে ২ হাজার টাকা, ফেয়ার লিডিসকে ২ হাজার টাকা, আনিছা ফ্যাশনকে ২ হাজার টাকা, সায়ান ফ্যাশনকে ২ হাজার টাকা এবং নীলিমা ফ্যাশন এন্ড কসমেটিকস শপকে আরো ২ হাজার টাকা, সর্বমোট ১০ হাজার টাকা জরিমানা আরোপ ও আদায় করা হয়।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, সিলেট জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. আমিরুল ইসলাম মাসুদের নেতৃত্বে অভিযানে সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন র‌্যাব-৯ এর একটি টিম।

এসময় আমিরুল ইসলাম মাসুদ বলেন, অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ঈদের কেনাকাটায় ভোক্তাদের হয়রানি ও প্রতারণার হাত থেকে রক্ষা করতে শাড়ি-কাপড় ও প্রসাধনি সামগ্রির দোকান এবং পরিবহন খাতে এধরণের অভিযান অব্যহত থাকবে। তবে ব্যবসায়ীদের সতর্ক করতে প্রাথমিক অবস্থায় জরিমানার পরিমাণ সীমিত রেখে সচেতনতামূল প্রচারণায় জোর দিচ্ছে ভোক্তা অধিদপ্তর।

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২২
Design & Developed BY Cloud Service BD