সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ১২:০৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
আইসিইউতে ভর্তি বিএনপি নেতা মঈন খান পুকুরে টাকা ডুবলেই ‘স্বপ্ন পূরণ পানির নিচে খাদেমের কারসাজি’ সিলেট নগরীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু সিলেটে কুড়িয়ে পাওয়া শিশু উর্মির অভিভাবকের সন্ধান চায় পুলিশ বিশ্বকাপ ট্রফি ৫১ দেশের উদ্দেশে যাত্রা শুরু ‘এখানে কিছু টাকা আছে, এটা দিয়ে আমার দাফন-কাফন করিও’ সিলেটে পাহাড়ি ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, দুর্ভোগে মানুষ সিলেটে গাঁজাসহ মাদক কারবারি আটক বড়লেখায় বর্হিবিশ্ব জাতীয়তাবাদী ফাউন্ডেশন নেতৃবৃন্দদের সংবর্ধনা প্রদান হবিগঞ্জে ভারতীয় চাপাতাসহ চোরাকারবারি আটক সোমবার টিসিবির পণ্য বিক্রি স্থগিত জকিগঞ্জে নদীভাঙ্গন পরিদর্শনে বীরমুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে নিরাপত্তা জোরদারে বিজিবি মোতায়েন নায়িকার জন্যই ভাঙল সোহেল-সীমার ২৪ বছরের সংসার! গোলাপগঞ্জে ৬ প্রতিষ্ঠানকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা




ভিডিও প্রকাশের ভয় দেখিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ

Screenshot 20220318 112241 Facebook - BD Sylhet News




বিডি সিলেট ডেস্ক:: সাভারের আশুলিয়ায় দশম শ্রেণি পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীর আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে ইন্টারনেটে ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় আশুলিয়া থানায় ওই শিক্ষার্থী একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করলেও অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।

অভিযুক্ত রনি (২০) আশুলিয়ার নিরিবিলি স্বপ্নবিলাস এলাকার দেলোয়ার হোসেন ওরফে দিলা মিয়ার ছেলে। সে ওই স্কুলশিক্ষার্থীর বড় ভাইয়ের বন্ধু।

লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, প্রায় এক বছর আগে পোশাক পরিবর্তনের সময় অভিযুক্ত রনি ওই শিক্ষার্থীর আপত্তিকর ভিডিও ধারণ করে। সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে স্কুলশিক্ষার্থীকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। এছাড়া রনি ফেসবুকে ভুয়া আইডি খুলে ওই শিক্ষার্থীর বান্ধবীদের ভিডিও পাঠিয়ে আরও মানসিক চাপ বাড়িয়ে তুলে।

জানা গেছে, অভিযুক্ত রনির মা বিদেশে থাকেন। বাবা দিলা মিয়া অন্যত্র বিয়ে করে সংসার করেন। রনি ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীর ময়ের কাছে তিন হাজার টাকা মাস চুক্তিতে তিন বেলা খাবার খেত। প্রথম দিকে টিফিন কেরিয়ারের বাটিতে খাবার দিলেও পরে সে ওই শিক্ষার্থীর বাসায় এসে খাবার খেত।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী জানায়, রনি তাকে ভিডিওর ভয় দেখিয়ে বিকাশ নম্বরে অনেকবার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। একপর্যায়ে কৌশলে বিকাশের দোকান থেকে রনিকে আটক করলেও স্থানীয় মাতাব্বররা মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে বিষয়টি আপোষ করে দেন। এ সময় মাতাব্বররা জোরপূর্বক ভুক্তভোগীর পরিবারের কাছ থেকে সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর নিলে থানা পুলিশের আশ্রয় নেয় ওই শিক্ষার্থীর পরিবার।

আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান বলেন, আমরা একটি অভিযোগ পেয়েছি। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন। অভিযুক্ত ধর্ষককে গ্রেফতারে অভিযান চলছে। সূএ- ইত্তেফাক

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২২
Design & Developed BY Cloud Service BD