সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৫:৩৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
আসছে বর্ষা, সিলেটে ঝুঁকি নিয়ে টিলায় বসবাস শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে সিলেট জেলা আ.লীগের কর্মসূচী ঘোষণা জগন্নাথপুরে ৩ দিন ধরে ফেরি চলাচল বন্ধ, চরম দুর্ভোগে যাত্রীরা জাপানি দুই শিশু: বাবার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদন সিলেটে একদিনে সড়ক দূর্ঘটনায় ৪ জন নিহত আইসিইউতে ভর্তি বিএনপি নেতা মঈন খান পুকুরে টাকা ডুবলেই ‘স্বপ্ন পূরণ পানির নিচে খাদেমের কারসাজি’ সিলেট নগরীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু সিলেটে কুড়িয়ে পাওয়া শিশু উর্মির অভিভাবকের সন্ধান চায় পুলিশ বিশ্বকাপ ট্রফি ৫১ দেশের উদ্দেশে যাত্রা শুরু ‘এখানে কিছু টাকা আছে, এটা দিয়ে আমার দাফন-কাফন করিও’ সিলেটে পাহাড়ি ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, দুর্ভোগে মানুষ সিলেটে গাঁজাসহ মাদক কারবারি আটক বড়লেখায় বর্হিবিশ্ব জাতীয়তাবাদী ফাউন্ডেশন নেতৃবৃন্দদের সংবর্ধনা প্রদান হবিগঞ্জে ভারতীয় চাপাতাসহ চোরাকারবারি আটক




জগন্নাথপুরে বাউরকা বিলে মাছ ধরা উৎসব

1647345444.Fish - BD Sylhet News




 

উৎসবমুখর পরিবেশে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের বাউরকা বিলে দিনব্যাপী পলো দিয়ে মাছ ধরেছেন বিভিন্ন গ্রামের লোকজন।

মঙ্গলবার (১৫ মার্চ) সকাল থেকে ওই বিলে মাছ ধরা উৎসব শুরু হয়।

চলে বিকেল পর্যন্ত।
এক সময় গ্রামবাংলার ঐতিহ্য ছিল দল বেঁধে মাছ ধরা।

গ্রামের বিভিন্ন বয়সী মানুষ দিনক্ষণ ঠিক করে মাছ ধরার উৎসবে মেতে উঠত। কালের বিবর্তনে গ্রামীণ অন্যান্য ঐতিহ্যের মতো মাছ ধরা উৎসবটাও বিলুপ্ত প্রায়।

তবে সেই চিত্র ধরে রাখতে শীতের তীব্রতা পুরোপুরি না কাটলেও বিলের ঠাণ্ডা পানিতে এক ঝাঁক মাছ শিকারি নেমেছেন। হই-হুল্লোড় শব্দে মুখরিত পুরো এলাকা। আর এমন দৃশ্য দেখতে মেতে ওঠে উপজেলার পাটলি ইউনিয়নের প্রভাকরপুর গ্রামের মানুষ। বিলের দুই পাড়জুড়ে মাছ ধরা দেখতে ভিড় করে হাজারো দর্শনার্থী।

বিলটি প্রভাকরপুর গ্রামের হলেও পলো উৎসবে অংশ নেন আশপাশের গ্রামের প্রায় এক হাজার মাছ শিকারি। পলোতে ধরা পড়ে বোয়াল, শোল, মাগুর, গজারসহ বিভিন্ন জাতের মাছ।

স্থানীয়রা বলেন, প্রতিবছর দু’বার করে এই বিলে পলো দিয়ে মাছ ধরার উৎসব হয়। তবে বিলে মাছের নড়াচড়া ও পানির পরিমাণের ওপর ভিত্তি করে এই উৎসব বছরে তিনবারও হয়। গ্রামবাসীর সিদ্ধান্তে নির্দিষ্ট দিনের আগে কেউ সেই বিলে মাছ ধরে না। নির্দিষ্ট দিনে সকাল থেকে মাছ ধরার জন্য শিকারিরা বিলে অংশ নেন।

প্রভাকরপুর গ্রামের শেবুল মিয়া  বলেন, প্রতিবছর বিলে মাছ ধরতে আসি। এবারও এসেছি। মাছ পাওয়া বা না পাওয়া বড় নয়। সবাই মিলে আনন্দ করছি, হই-হুল্লোড় করছি এটাই অনেক কিছু। তার পরও আমি একটি শোল মাছ পেয়েছি। আনন্দ লাগছে।

স্থানীয় বাসিন্দা ইয়াকুব আহমদ বলেন, দীর্ঘদিন ধরে আমাদের গ্রামে এই পলো বাওয়া উৎসব হচ্ছে। এখন মাছ কমে গেছে। আগে বেশি মাছ পাওয়া যেত। তার পরও প্রতিবছর এই বিলে উৎসবমুখর পরিবেশে পলো বাওয়া উৎসব হয়। আমি মাছ ধরতে না পারলেও পাড়ে দাঁড়িয়ে দেখি এবং আনন্দ পাই।

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২২
Design & Developed BY Cloud Service BD