সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৫:৩৯ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
আসছে বর্ষা, সিলেটে ঝুঁকি নিয়ে টিলায় বসবাস শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে সিলেট জেলা আ.লীগের কর্মসূচী ঘোষণা জগন্নাথপুরে ৩ দিন ধরে ফেরি চলাচল বন্ধ, চরম দুর্ভোগে যাত্রীরা জাপানি দুই শিশু: বাবার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদন সিলেটে একদিনে সড়ক দূর্ঘটনায় ৪ জন নিহত আইসিইউতে ভর্তি বিএনপি নেতা মঈন খান পুকুরে টাকা ডুবলেই ‘স্বপ্ন পূরণ পানির নিচে খাদেমের কারসাজি’ সিলেট নগরীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহীর মৃত্যু সিলেটে কুড়িয়ে পাওয়া শিশু উর্মির অভিভাবকের সন্ধান চায় পুলিশ বিশ্বকাপ ট্রফি ৫১ দেশের উদ্দেশে যাত্রা শুরু ‘এখানে কিছু টাকা আছে, এটা দিয়ে আমার দাফন-কাফন করিও’ সিলেটে পাহাড়ি ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, দুর্ভোগে মানুষ সিলেটে গাঁজাসহ মাদক কারবারি আটক বড়লেখায় বর্হিবিশ্ব জাতীয়তাবাদী ফাউন্ডেশন নেতৃবৃন্দদের সংবর্ধনা প্রদান হবিগঞ্জে ভারতীয় চাপাতাসহ চোরাকারবারি আটক




ছেলে হত্যার বিচার চেয়ে একাই আদালত চত্বরে মায়ের আহাজারি

Screenshot 20220310 151910 Gallery - BD Sylhet News




ছাতক (সুনামগঞ্জ)প্রতি‌নি‌ধি:: ছেলের বিচারের দাবি জানিয়ে মায়ের আহাজারি। আজ সকালে সুনামগঞ্জ আদালত চত্বরে।একমাত্র ছেলে মেহেদী হাসান রাব্বী হত্যার বিচারের দাবিতে একাই প্রতিবাদ জানাচ্ছেন মুক্তিযোদ্ধাকন্যা রুফিয়া বেগম। আজ বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জ আদালত চত্বরে।

বীর মুক্তিযোদ্ধার কন্যা রুফিয়া বেগম। তাঁর একমাত্র ছেলে দোকান কর্মচারী মেহেদী হাসান রাব্বী ২০১৯ সালে খুন হন। খুনিদের বিচার চাওয়ায় এই মাকে ‘পাগল’ আখ্যা দেওয়া হয়েছে। আসামিরা জামিনে মুক্ত হয়ে মামলা তুলে নিতে তাঁকে হুমকি দিচ্ছেন বলেও অভিযোগ আছে।

ছেলে রাব্বি হত্যার বিচার চেয়ে বৃহস্পতিবার (১০ই মার্চ) দুপুরে সুনামগঞ্জে জেলা ও দায়রা জজ কোর্ট প্রাঙ্গণে একাই মানববন্ধন করেন তার মা। মানববন্ধনে দাঁড়ানো এই মায়ের নাম রুপিয়া বেগম। তার বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নের পূর্ব নোয়ারাই গ্রামে। একমাত্র ছেলে মেহেদী হাসান রাব্বি (২২) হত্যার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিচারের দাবিতে একাই মানববন্ধন করেন তিনি।

রুপিয়া বেগম বলেন, ‘২০১৯ সালে ২৩ জুলাই বিকেলে সিমেন্ট ফ্যাক্টরি এলাকার বাজারের একটি দোকানে বসে চা খাইতেছিল আমার রাব্বি। ওই সময় লিয়াকত, তারেক আর সোহাগ আইয়া হঠাৎ করি আমার ছেলেকে পেছন থেকে কোপ দেয়। আমার ছেলেটা ডরাইয়া (ভয় পেয়ে) দৌড় দিসে। কিন্তু আমার পোয়াটারে (ছেলেটাকে) তারা দৌড়াইয়া দৌড়াইয়া কোপাইয়া মারসে রাম দা দিয়া। তিনি আরও বলেন, আমার ছেলে যখন আহত অবস্থায় পড়িয়া রইছে, কেউ হাত দিসে না, হসপিটাল লইয়া গেছে না, আমি পুলিশরে কইছি তারা খালি আমারে দৌড়াইছে। পরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাতে মারা যায় আমার যাদু বাছাইটা।

ঘটনার পর ২৬ জুলাই রুপিয়া বেগম বাদী হয়ে ১৭ জনের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। এরপর পুলিশ বিভিন্ন সময়ে কয়েকজন আসামিকে গ্রেপ্তার করে। বর্তমানে আসামিদের মধ্যে শুধু লিয়াকত আলী জেলে আছেন। এ ছাড়া একজন আসামি পলাতক। আর বাকি আসামিরা আদালত থেকে জামিনে আছে। পুলিশ মামলার তদন্ত করে ১৭ আসামির মধ্যে ১২জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দিয়েছে। অভিযোগপত্র থেকে বাদ পড়া আসামিদের নাম আবার যুক্ত করতে রুপিয়া বেগমের আইনজীবী আদালতে আবেদন করেছেন। জামিনে মুক্ত আসামীরা তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে এবং মারধর করেছে জানিয়ে রুপিয়া বেগম বলেন, ‘আমি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। আসামীরা হাইকোর্ট থেকে জামিন আনছিল ওই সময় তারা ঢাকা যাত্রাবাড়ি আমারে মারছে, আমার পা এখনো ফুলা (ফুলে) রইছে। আমার একটা ছোট মেয়ে আছে, মেয়েটারেও তারা মারি লাইতো (মেরে ফেলার) হুমকি দিসে, আমি আমার আর আমার ছোট মেয়েটার জানের নিরাপত্তা চাই। আমি চাই না আর কোনো মায়ের বুক খালি হউক। আমি খুনিদের ফাঁসি চাই।

রুপিয়া বেগম জানান, স্বামীর মৃত্যুর পর তিনি অনেক কষ্ট করে তার ছেলে রাব্বিকে বড় করেছেন।দোকানের কর্মচারী হিসেবে কাজ করে রাব্বি সংসার চালাতো। ছেলেকে হারিয়ে তিনি দিশাহারা হয়ে পড়েছেন। আসামিরা প্রভাবশালী হওয়ায় তিনি ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা করছেন।

শেয়ার করুন...











বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২২
Design & Developed BY Cloud Service BD