শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:২৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
সিলেট মহানগর সংবাদপত্র হকার্স সমবায় সমিতি’র নির্বাচিত কমিটির শপথ ও অভিষেক সম্পন্ন যেকোনো মূল্যে বৈশ্বিক শান্তি বজায় রাখার আহ্বান রাষ্ট্রপতির ওসমানীনগরে বিয়ের জন্য শিশু অপহরণ, তরুণী গ্রেফতার সিলেটে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা সেই নারী পুলিশ ক্লোজড বড়লেখায় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত গণেশের পাশে নিসচা’র নেতৃবৃন্দ নবীগঞ্জে যাত্রীবাহী বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে, নিহত ১ রবিবার থেকে সারাদেশে ফের শুরু টিসিবির পণ্য বিক্রি মালয়েশিয়ায় খালি হচ্ছে নেপালি গার্ড, দুয়ার খুলছে বাংলাদেশিদের শেখ মণির জন্মদিনে জেলা যুবলীগের মিলাদ ও দোয়া মাহফিল আয়রনের অভাব পূরণে করণীয় ৬৬ বছর বয়সে বধূ সেজে ভাইরাল নায়িকা রোজিনা সিলেটে আ.লীগের বিদ্রোহী আরও ৫ নেতা বহিষ্কার যেসব নামাজে ৫০ বছরের গুনাহ মাফ হয় মেসির চার তারকা হোটেল ভাঙার নির্দেশ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে রাজনৈতিক উস্কানি আছে : কাদের
cloudservicebd.com

সিলামে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আত্তর আলীর নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা

SILAM CHARMAN PHOTO 01 - BD Sylhet News

বিডি সিলেট ডেস্ক :: দক্ষিণ সুরমার ৫নং সিলাম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে চশমা প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো.আত্তর আলী ৮দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেছেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে দক্ষিণ সুরমার কলাবাগানের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে রকিব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপত্বিতে ও আবু সামারে পরিচালনায় আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি লিখিত ইশতেহার ঘোষণা করেন। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে তিনি ইশতেহার বাস্তবায়ন করবেন বলেও জানিয়েছেন।

তার ৮দফা ইশতেহার হলো, শিক্ষাখাতে উন্নয়ন, সামাজিক ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা, নাগরিক সুবিধাকে সহজতর করে গণমুখী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা, জবাবদাহিতা নিশ্চিতে উন্মুক্ত বাজেট অধিবেশন ও মতবিনিময় সভা, ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারকে (ইউডিসি) অধিকতর সেবামুখী প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করা, ইউপি সদস্য, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আত্মউন্নয়নে নিয়মিত সমন্বয় সভার আহ্বান, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে কর্ম পরিকল্পনা, ইউনিয়নের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়, হতদরিদ্র ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সহায়তা প্রদান ইত্যাদি।

লিখিত ইশতেহারে তিনি বলেন, শিক্ষাখাতের উন্নয়নে আমার ব্যক্তিগত পক্ষ থেকে এবং ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে উদ্যোগী হয়ে ইউনিয়নের ৯টি ওয়ার্ডের সমন্বয়ে সবগুলো প্রতিষ্ঠানের কমিটি/পরিচালনা পর্ষদ, ইউনিয়নের শিক্ষাবিদ-শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গ, প্রতিষ্ঠান প্রধান ও প্রবাসী কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের সহযােগিতা নিয়ে একটি স্বতন্ত্র এডুকেশন ট্রাস্ট গঠন, সময়ের ব্যবধানে সিলাম ইউনিয়নে যাতে একটি এডুকেশন জোনে পরিণত হয় সে প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখা হবে।

তিনি বলেন, একসময় আমাদের পূর্বপুরুষ তথা এই সিলাম ইউনিয়নবাসী সিলাম দক্ষিণ সুরমা তথা বৃহত্তর সিলেটের সালিশ বিচারকার্যে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ইনসাফভিত্তিক গ্রাম্য বিচারব্যবস্থাকে প্রতিষ্ঠিত করে সমাজে বিরাজমান নানাধরণের পারিবারিক, ভূ-সম্পত্তিগত এমনকি ছােটখাটো ফৌজারী অনেক বিষয়াবলীবে নিস্পত্তি করতে ভূমিকা রেখেছেন। গ্রাম্য সালিশ ব্যবস্থাকে আদালতও আমলে নিয়ে আইন মন্ত্রনালয়ের অধিনে ইউনিয়ন পরিষদগুলােতে গ্রাম আদালত প্রতিষ্ঠা করেছেন। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে, সেই সালিশ ব্যবস্থা প্রায় ভেঙ্গে পড়েছে। প্রচলিত সালিশ ব্যবস্থাকে সমন্বয় করে যাতে ইউনিয়নের অভ্যন্তরীন কোনাে সমস্যা, থানা পুলিশ বা আালত পর্যায়ে গিয়ে মানুষ হয়রানীর শিকার যাতে না হয় সে জন্য ইউনিয়নের অভ্যন্তরের সালিশ বিচারকার্যে এমন মান্যবর ব্যক্তিরে সমন্বয়ে সর্বদলীয় একটি সালিশ বোর্ড বা জুরি বোর্ড গঠন করা হবে।

আত্তর আলী বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ প্রদত্ত নাগরিক সুবিধাকে সহজতর করে গণমুখী প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হবে। গ্রামীন পর্যায়ের বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা যেমন- নাগরিকত্ব সনদ, জন্ম নিবন্ধন,মৃত্যু নিবন্ধন, উত্তরাধিকারী সনদ, ট্রেড লাইসেন্স, সামাজিক সুরক্ষা সেবা কর্মসূচি: টিআর, কাবিখা, কাবিটা, এলজিএসপি-১/২,এডিপি, বিধবা ভাতা, স্বামী পরিত্যাক্ত ভাতা, বয়স্ক ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা,সরকার কর্তৃক বিভিন্ন আপদকালীন অর্থায়ন, ভিজিডি-ভিজিএফ। কার্ড রিলিফ, দুর্যোগকালীন সহায়তা সহ সরকার হতে প্রাপ্ত বিভিন্ন অনুদান।

এছাড়া অবকাঠামােগত উন্নয়নে সিসি, আরসিসি ঢালাই, ইট সয়েলিং, ছােট ছােট কালভার্ট ও ড্রেন নির্মাণ, নিম্নাঞ্চল এলাকায় গার্ডওয়াল নির্মান, বিদ্যালয়গুলােতে ওয়াসব্লক ও গারলস। ফ্যাসিলিটিস ভবন নির্মাণ, বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা (টিউবয়েল, নলকূপ স্থাপন), কৃষকদের মধ্যে কৃষিকার্ড-সার বীজ ও ভর্তুকি প্রদান, ছড়া খাল গুলােকে পুনঃখননসহ জেলা পরিষদ ও উপজেলা পরিষদ কর্তৃক প্রাপ্ত সবধরণের সুযােগ সুবিধাকে সুষম বণ্টন নীতিতে জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে সচেষ্ট থাকব।

চেয়ারম্যান প্রার্থী আত্তর বলেন, স্বচ্ছতা, জবাবদিহীতা ও কর্তব্যনিষ্ঠা হচ্ছে একজন জনপ্রতিনিধির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একটি ইউনিয়নে প্রতি অর্থ বছরের সরকার কর্তৃক নির্দেশিত এবং ইউনিয়নের যাবতীয় আয় ব্যয়ের হিসাব সংবলিত একটি সমৃদ্ধ, উন্নয়নমূলক ও গণমুখী বাজেট প্রণয়ন করা হবে। সরকারের আইসিটি মন্ত্রনালয়ের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত গ্রামীণ পর্যায়ে জনগণের দোরগােড়ায় যাতে প্রয়ােজনীয় তথ্য সেবা সহজে পৌঁছে দেয়া যায় সেজন্য ইউনিয়ন পরিষদের তথ্য ও সেবা কেন্দ্র ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার রয়েছে। সেখানে ১জন পুরুষ ও ১ জন মহিলা প্রশিক্ষিত উদ্যোক্তার মাধ্যমে সরকার প্রদত্ত ল্যাপটপ, ওয়েবক্যামেরা, ডেস্কটপ প্রিন্টার স্ক্যানার প্রিন্টার, ফটোকপি মেশিন, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর ইত্যাদি প্রদান করা হয়েছে। উদ্যোক্তাদের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় এই উপকরণগুলাের যথাযথ সংরক্ষণ ও ব্যবহারে গুরুত্বারােপ করবো। বিশেষ করে বেকার ও শিক্ষিত তরুণ তরুণীদের স্বল্পমূল্যে ইউডিসিতে কম্পিউটার ট্রেনিং, সার্টিফিকেট প্রদানসহ কর্মমুখী কাজে ব্যক্তি, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে বিশেষ প্রনোদনা প্রদান করা হবে।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য/সদস্যা, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আত্ম উন্নয়নে নিয়মিত সমন্বয় সভার আহ্বান। সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া ক্ষেত্রে কর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ।ইউনিয়নের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়, হতদরিদ্র ও পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সহায়তা প্রদান করা হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন হান্নান মেম্বার, ফখরুল ইসলাম, মন্তাজ আলী, জাহাঙ্গীর আলম, ফুরুক মিয়া, জাকির হোসেন প্রমুখ।

 

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD