বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৩৯ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
আবরার হত্যায় জড়িত মুন্নার পরিবার বিএনপির রাজনীতিতে জড়িত! কিডনি রোগীরা কী খাবেন না? জনতার হাতে আটক হত্যা মামলার আসামিকে প্রাণে বাঁচাল পুলিশ! হবিগঞ্জে চাচির হাতে আড়াই মাসের ভাতিজা খুন! এক প্রবাসী ফেসবুক লাইভে এসে আত্মহত্যা, দেশে স্ত্রীর পরকীয়া সিলেটের সাইবার ট্রাইব্যুনালে ঝুমন দাশের জামিন বহাল এইচএসসি পরিক্ষা: পঞ্চম দিনে অনুপস্থিত ৩৭১৮ শাবি থেকে জাতিকে যোগ্য নেতৃত্ব উপহার দিতে চাই : উপাচার্য নাইজেরিয়ায় বাসে আগুন ধরিয়ে ৩০ যাত্রীকে হত্যা দোয়ারায় বিদেশি মদসহ আটক ১ সিলেটে পানিতে ডুবে প্রতিবন্ধী যুবতীর মৃত্যু এবার ‘ঘর’ থেকেও বহিষ্কার তথ্যপ্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ জাতির পিতার আদর্শে তরুণ প্রজন্মকে প্রস্তুত করতে যুবলীগকে আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর কিডনি রোগীরা কী খাবেন না? ‘যতোদিন বেঁচে থাকবো ততোদিন মানুষের জন্য কাজ করতে হবে’
cloudservicebd.com

থ্যালাসেমিয়ায় ভুগছেন কি না বুঝবেন যেসব লক্ষণে

b20 - BD Sylhet News

লাইফস্টাইল ডেস্ক :: থ্যালাসেমিয়া এক ধরনের রক্তশূন্যতা। যা বংশগতভাবে বিস্তার লাভ করে। এমন রোগীর শরীরে স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় হিমোগ্লোবিন তৈরির হার কমে যায়। আর কতটা কমবে তা নির্ভর করে দুটি জিনের উপর। যা বাবা ও মায়ের জিন থেকে সন্তানের শরীরে আসে।

এটি প্রধানত দু’ধরনের। আলফা থ্যালাসেমিয়া ও বিটা থ্যালাসেমিয়া। এর মধ্যে বিটা থ্যালাসেমিয়া বেশি গুরুতর। অন্যদিকে আলফা থ্যালাসেমিয়ার তীব্রতা কম হলেও এতে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেশি। বিশ্বে প্রতি বছর প্রায় ১ লাখ শিশু থ্যালাসেমিয় নিয়ে জন্মগ্রহণ করে।

যদি হিমোগ্লোবিন তৈরির একটি জিন ভালো ও অন্যটি খারাপ থাকে তাহলে হিমোগ্লোবিন স্বাভাবিকের চেয়ে ১০-৫০ শতাংশ কম তৈরি হয়। এ ধরনের রোগীকে থ্যালাসেমিয়া মাইনর বা হেটারোজিয়াস স্টেট বলে।

এদের ক্ষেত্রে রোগের লক্ষণ কম মাত্রায় প্রকাশ পায়। এ কারণে সহজে থ্যালাসেমিয়া ধরা পড়ে না। এমন রোগীদেরকে থ্যালাসেমিয়া ট্রেইট বা কেরিয়ার বলে।

আর যাদের দুটি জিনই খারাপ অর্থাৎ মা ও বাবা উভয়ই থ্যালাসেমিয়া ট্রেইট, তাদের মধ্যে রোগের লক্ষণসমূহ শিশুকালেই প্রকাশ পায়। ফলে তাদের রোগ নির্ণয় দ্রুত হয়।

এদেরকে থ্যালাসেমিয়া মেজর বা হোমোজিয়াস স্টেট কিংবা থ্যালাসেমিয়া ইন্টারমেডিয়া বলা হয়। বাংলাদেশে হিমোগ্লোবিন-ই ও হিমোগ্লোবিন বিটা থ্যালাসেমিয়া ট্রেইটের প্রকোপ বেশি।

জেনে নিন থ্যালাসেমিয়া রোগের লক্ষণসমূহ-

>> রক্তস্বল্পতা বা অ্যানিমিয়া
>> ত্বক হলুদ হয়ে যাওয়া বা জন্ডিস
>> দেহে অতিরিক্ত আয়রন জমা হওয়া
>> সংক্রমণ
>> স্প্লিন বা প্লীহা বড় হয়ে যাওয়া
>> অবসাদগ্রস্ততা
>> দুর্বলতা ও অস্বস্তি

>> শ্বাসকষ্ট
>> মুখের হাড়ের বিকৃতি, মুখে অস্বাভাবিক পরিবর্তন
>> শারীরিক বৃদ্ধি কমে যাওয়া
>> পেট বেড়ে যাওয়া
>> প্রস্রাব গাঢ় রংয়ের হওয়া
>> হৃৎপিণ্ডের সমস্যা ইত্যাদি।

থ্যালাসেমিয়া নির্ণয়

বিটা থ্যালাসেমিয়া নির্ণয়ের ক্ষেত্রে চিকিৎসক আপনার লোহিত রক্ত কণিকার আকার পরীক্ষা করার পরামর্শ দেবেন। এটি আপনার সম্পূর্ণ রক্তকণিকা গণনার (সিবিসি) মিন কর্পাস্কুলার ভলিউমের (এমসিভি) মাধ্যমে দেখানো হয়।

যদি আপনার এমসিভি রিডিং ৮০ বা তার কম হয় ও আপনার লোহার ঘাটতি না থাকে তাহলে বিটা থ্যালাসেমিয়ার প্রলক্ষণ থাকতে পারে।

হিমোগ্লোবিন ইলেক্ট্রোফোরেসিস, কোয়ান্টিটেটিভ হিমোগ্লোবিন এ ২ ও কোয়ান্টিটেটিভ হিমোগ্লোবিন এফ পরীক্ষার মাধ্যমেও বিটা থ্যালাসেমিয়ার প্রলক্ষণ আছে কিনা তা জানা যায়।

সূত্র: থ্যালাসেমিয়া ডট অর্গ

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD