বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০১:৪৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
আগামী বছরের এসএসসি ফেব্রুয়ারির শুরুতে হচ্ছে না : শিক্ষামন্ত্রী ২০২২ সালে জাপানি বিনিয়োগের নতুন ঢেউয়ের আশা মোমেনের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশকে আরও ৩৫ লাখ ফাইজার ভ্যাকসিন দান করেছে ট্যুরিজম ক্লাবের সাদা পাথর পর্যটনস্পট পরিচ্ছন্নতা ক্যাম্পেইন সম্পন্ন ওসমানীনগরে দুই সন্তানের জননীর আত্মহত্যা ছাতকে ইউপি নির্বাচনে ১০ ইউনিয়নে প্রতিক বরাদ্দ আজ কমলগঞ্জে গলাকাটা অবস্থায় বৃদ্ধের মরদেহ উদ্ধার কাবুলে নারীদের বিক্ষোভ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব শিল্প পুরস্কার পাচ্ছে ২৩ প্রতিষ্ঠান গোশতের ঘটনায় তালাক দেয়া সেই নববধূকে আবারো বিয়ে ২৮ অক্টোবর কেন ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ হবে ‘মডেল’ তৈরির নামে বিবস্ত্র ছবি তুলে টাকা আদায়, তরুণী গ্রেফতার শিশুরাই হতে পারে জলবায়ু পরিবর্তনের নিয়ামক : স্পিকার মাদকের নিত্যনতুন রুট, বাংলাদেশ-ভারত বৈঠক পাটুরিয়ায় ফেরী দূর্ঘটনায় ৭ সদস্যের তদন্ত কমিটি
cloudservicebd.com

মৌলভীবাজারে ভাইকে বাঁচাতে ভাইয়ের কিডনি দান

FB IMG 1631974379649 - BD Sylhet News

বিডি সিলেট ডেস্কঃ  ভাইকে বাঁচাতে নিজের কিডনি দিচ্ছেন ভাই কিংবা বোন- এমন দৃশ্য সিনেমাতে হরহামেশাই দেখা যায়। তবে বাস্তবে এ রকম ঘটনা ঘটেছে মৌলভীবাজারের বড়লেখায়।

নিজের জীবনের কথা চিন্তা না করেই বড় ভাইকে নিজের একটি কিডনি দিয়েছেন ছয়ফুল হোসেন (২৮) নামে এক যুবক। এতে ভাইয়ের প্রতি ভালোবাসার বিরল এক দৃষ্টান্ত গড়ে প্রসংশায় ভাসছেন তিনি। ছোট ভাইয়ের দেওয়া কিডনি পেয়ে নতুন জীবন পেয়েছেন বড়ভাই বদরুল হোসেন (৩৩)।

গত শুক্রবার ঢাকার শ্যামলীর সিকেডি অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে ছয়ফুল হোসেনের দেওয়া কিডনি বদরুল হোসেনের দেহে সফলভাবে প্রতিস্থাপন করেছেন চিকিৎসকরা। বর্তমানে তারা দুজনেই সুস্থ রয়েছেন। তারা দুজন বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণভাগ উত্তর (কাঠালতলী) ইউনিয়নের দক্ষিণ মুছেগুল গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে। এদিকে বদরুলের চিকিৎসার ব্যয়ভার সংগ্রহের পেছনে সবচেয়ে বেশি অবদান রেখেছে শিক্ষা ও সেবা ফাউন্ডেশন কাঠালতলী। মাত্র দেড়মাসে তারা বদরুলের চিকিৎসার জন্য তহবিল গঠন করে প্রায় ৩৫ লাখ টাকা সংগ্রহ করেছেন। এর মধ্যে প্রায় ২৭ লাখ টাকা বদরুলের চিকিৎসার পেছনে ব্যয় হয়েছে।

জানা গেছে, বদরুল হোসেন প্রায় ৮ বছর ধরে সংযুক্ত আরব-আমিরাতে ছিলেন। সেখানে তিনি একটি দোকানে স্যালসম্যান হিসেবে কাজ করতেন। ২০১৯ সালে ৩০ ডিসেম্বর হঠাৎ বদরুলের শারীরিক অসুস্থতা দেখা দেয়। পরে তিনি চিকিৎসকের কাছে গেলে তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তাকে জানান তার দুটি কিডনি একেবারেই নষ্ট হয়ে গেছে। এরপর ২০২০ সালের ০২ জানুয়ারি বদরুল দেশে ফেরে আসেন। দেশে ফেরে চিকিৎসকের পরামর্শে ঢাকার শ্যামলীর সিকেডি অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে তার কিডনি ডায়ালাইসিস শুরু হয়। এতেও বদরুলের অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। এসময় চিকিৎসকরা তাকে জানান বাঁচতে হলে অন্তত একটি কিডনি প্রতিস্থাপন করতে হবে। এজন্য প্রয়োজন ২৫ লাখ টাকা। এরইমধ্যে বদরুলে চিকিৎসার পেছনে সহায়-সম্বল যা ছিল তা ব্যয় করে অনেকটা নিঃস্ব হয়ে পড়ে তার পরিবার।

এই অবস্থায় বদরুল ও তার পরিবারে যেন অন্ধকার নেমে আসে। কারণ একদিকে ২৫ লাখ টাকা অন্যদিকে একটি কিডনি কে দেবে বদরুলকে! এই অবস্থায় নিজের জীবনের কথা না ভেবে বড় ভাইয়ের জীবন বাঁচাতে এগিয়ে আসেন বদরুলের ছোটভাই ছয়ফুল হোসেন। তিনি নিজের একটি কিডনি বদরুলকে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বদরুলের কিডনি সাথে ছয়ফুলের কিডনি মিলে যায়। এদিকে বদরুলের চিকিৎসার জন্য অনেকটা আলো হয়ে পাশে দাঁড়ায় শিক্ষা ও সেবা ফাউন্ডেশন কাঠালতলী। তারা তার চিকিৎসার জন্য তহবিল গঠন করে অর্থ সংগ্রহ শুরু করেন। পাশাপাশি চলে ফেসবুকে প্রচারণা। হাত বাড়িয়ে দেন দেশ-বিদেশের বিভিন্ন ব্যক্তি-সংগঠন। ফলে অল্প কয়েকদিনের মধ্যে চিকিৎসার জন্য প্রায় ৩৫ লাখ টাকা সংগ্রহ হয়।

২০২০ সালের জুলাই মাসে বদরুলের দেহে কিডনি প্রতিস্থাপনের কথা থাকলেও তা আর হয়ে ওঠেনি। কারণ এর মধ্যে বদরুলের শরীরে বাসা বাঁধে প্রাণঘাতী হেপাটাইটিস-সি ও যক্ষ্মা রোগ। এদিকে প্রায় ১৪ মাস পর সুস্থ হয়ে ওঠেন বদরুল। এরপর গত শুক্রবার ঢাকার শ্যামলীর সিকেডি অ্যান্ড ইউরোলজি হাসপাতালে কিডনি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. কামরুল ইসলামের তত্ত্বাবধানে ছয়ফুল হোসেনের দেওয়া কিডনি বদরুল হোসেনের দেহে সফলভাবে প্রতিস্থাপন করা হয়।

বদরুল ও ছয়ফুলের বড়ভাই শিক্ষক মিলাদ হোসেন শনিবার বিকেলে বলেন, আমার ছোট ভাই ছয়ফুলের দেওয়া কিডনি বদরুলের দেহে সফলভাবে প্রতিস্থাপন করেছেন চিকিৎসকরা। তারা দুজনেই এখন সুস্থ রয়েছেন। তিনি বদরুলের পাশে দাঁড়ানোর জন্য শিক্ষা ও সেবা ফাউন্ডেশন কাঠালতলী’র পাশাপাশি সবার কাছে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

শিক্ষা ও সেবা ফাউন্ডেশন কাঠালতলী’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছয়ফুল হক শনিবার বিকেলে বলেন, বদরুলের চিকিৎসার জন্য প্রথমে ২৫ লাখ টাকার প্রয়োজন ছিল। আমরা তার চিকিৎসার্থে তহবিল গঠন করে টাকা সংগ্রহ শুরু করি। দেড়মাসে প্রায় ৩৫ লাখ টাকা তহিবেল জমা হয়। বদরুল কয়েক মাস অসুস্থ থাকায় কিডনি প্রতিস্থাপন করতে দেরি হয়েছে। তার চিকিৎসায় প্রায় ২৭ লাখ টাকা খরছ হয়েছে। আর তার ছোটভাই ছয়ফুল তাকে একটি কিডনি দিয়েছেন। ছয়ফুল তার ভাই বদরুলকে কিডনি দিয়ে ভাইয়ের প্রতি ভাইয়ের ভালোবাসার বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD