রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:০৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
প্রতিবন্ধী রাজনের করুণ জীবিকাযুদ্ধ যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাবাহিনী প্রধান নির্বাচন সরকারের অধীনে নয়, নির্বাচন হয় কমিশনের অধীনে : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বাংলাদেশে এসে গান গাইতে চান ‘মাগে হিতে’র শিল্পী সিলেটে আঞ্জুমানে মুফিদুল ইসলাম’র যাত্রা শুরু স্কটল্যান্ডে সহকর্মীর ছুরিকাঘাতে বিয়ানীবাজারের যুবক খুন মৌলভীবাজারে ভাইকে বাঁচাতে ভাইয়ের কিডনি দান সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের নতুন সদস্য পদে আবেদন আহ্বান এসপিএল ২০২১ আয়োজক কমিটির সাথে ডা: শিপলুর মতবিনিময় সিলেটের করোনা যোদ্ধাদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান ‘মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের’ অনুষ্ঠান বন্ধ করলেন ওবায়দুল কাদের বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব স্থাপনের সাইট পরিদর্শনে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কয়েসের পদ বহাল সিলেট জেলা আ’লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত টিকার দাবিতে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে প্রবাসীদের বিক্ষোভ
cloudservicebd.com

মাত্র ৩০ টাকায় কোটিপতি!

FB IMG 1628633084261 - BD Sylhet News

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ মাত্র ৩০ টাকায় কোটিপতি হয়ে গেলেন এক ব্যক্তি। অবাস্তব শোনালেও, ঘটনাটি সত্য। আর ওই ব্যক্তি এভাবে ভাগ্যচাকা ঘুরিয়ে দিয়েছে লটারির প্রথম পুরস্কার।

সকালে ৩০ টাকা দিয়ে লটারি কিনে দুপুরের মধ্যে কোটিপতি হয়ে গেলেন এক ডিলার ব্যবসায়ী। ভারতের নলহাটির ভগবতীপুরে ঘটেছে এই ঘটনা।

গত ৯ আগস্ট সকালে কাউন্টার থেকে লটারি কিনেছিলেন ওই ব্যবসায়ী। দুদিন পরে ড্র হলে দেখেন প্রথম পুরস্কারটাই তার। মুহূর্তেই ১ কোটি টাকার মালিক হয়ে গেলেন তিনি। অবশ্য টাকা এখনো তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে জমা হয়নি।

ভারতের সংবাদমাধ্যম জি-নিউজকে ওই ব্যক্তি জানিয়েছেন, কোটি টাকার প্রথম পুরস্কারটা আমার টিকিট জেনে লাফিয়ে উঠি। এখনো টাকা হাতে পাইনি। লটারি ইন্সপেক্টর এসে তদন্ত করে আমার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট নম্বর ও তথ্যসহ টিকিটটা নিয়ে গেছেন। ১০-১৫ দিনের মধ্যে নাকি টাকা অ্যাকাউন্ট ঢুকে যাবে। সরকারিভাবে যেসব প্রক্রিয়া রয়েছে সেগুলো সম্পন্ন হতেই নাকি এতো দেরি।

প্রথম পুরস্কার বিজয়ীর ছেলে বলেন, আমরা খুবই আনন্দিত। তবে বছর খানেক আগে এ পুরস্কার পেলে আমাকে হয়তো লেখাপড়া ছাড়তে হতো না। উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ হাওয়ার পর কলেজ ভর্তি হতে পারি নি। আমার পুলিশের চাকরির ইচ্ছা ছিল। অভাব ও পারিবারিক সমস্যার জন্য তা পূরণ করতে পারিনি। এখন বাবার ব্যবসায় সহায়তা করছি।

তবে ছোটো বোনের স্বপ্নটা এ অর্থ দিয়ে ভালোই পূরণ করা যাবে বলে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন তিনি।

বলেন, আমার ছোট বোনটা কলেজে প্রথম বর্ষের ছাত্রী। তার ইচ্ছা স্কুল শিক্ষিকা হাওয়ার। সেই স্বপ্ন পূরণ হবে। এছাড়া সংসার ও ব্যবসাসংক্রান্ত কাজে ব্যাংঙ্ক থেকে অনেক ঋণ নেওয়া হয়েছে। তা থেকেও মুক্তি পাব। আমাদের মূলত দিন আনি দিন খাই এভাবে চলত। তবে বাবাকে বলব দুঃস্থ ছাত্রছাত্রীদের পাশে দাঁড়াতে।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD