সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০২:০৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ডিও লেটারের সত্যতা যাচাইপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ খুলছে শাবির হল, শিক্ষার্থী ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার আমেজ ২০২৬ সালে জাতিসংঘ অধিবেশনে সভাপতি প্রার্থী বাংলাদেশ : ড.মোমেন বিশ্ব শান্তির জন্য চাই বিশ্বনবির আদর্শ স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের তথ্য ঝুঁকিতে! মাল্টায় ২০ হাজারের বেশি দক্ষ শ্রমিক পাঠানোর সুযোগ বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ: কৃষিমন্ত্রী সিলেটে ট্যাংকলরির চাপায় মোটর সাইকেল আরোহী নিহত ডলফিন হত্যাকারীদের তথ্য দিলে পুরস্কার দেয়া হবে; পরিবেশমন্ত্রী শিক্ষার্থীরা নেমে গেলে পরিস্থিতি ভয়াবহ হবে : শামছুল ইসলাম প্রয়াত আবু নছরের বাড়িতে সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নাহিদ সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে গণপ্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান বড়লেখায় দুই রিয়াজের হাতে জাপা ভারতে ১শ’ কোটি মানুষকে টিকা দেয়ায় মোদীকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শীর্ষে সাকিব
cloudservicebd.com

রাস্তায় বেড়েছে গাড়ি, চলছে তল্লাশিও

FB IMG 1627561153087 - BD Sylhet News

বিডি সিলেট ডেস্কঃ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ঘোষিত কঠোরতম বিধিনিষেধের সপ্তম দিনে আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীতে বাইরে থেকে আসা মানুষের সংখ্যা বেড়েছে। সকাল থেকে রাজধানীর ধানমন্ডি, মিরপুর, গুলিস্তান, ফার্মগেট, বিমানবন্দর, যাত্রাবাড়ী, কমলাপুর, মতিঝিলসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার সড়কে রিকশা, মোটরসাইকেল, ব্যক্তিগত গাড়ির উপস্থিতি অন্যান্য দিনের তুলনায় কিছুটা বেশি দেখা গেছে।

বেসরকারি ব্যাংক কর্মকর্তা আবু সুফিয়ান থাকেন রাজধানীর খিলগাঁওয়ে। ব্যাংক খোলা থাকায় নিজের কর্মস্থল নর্দার বাঁশতলায় রিকশায় করে যাচ্ছিলেন। তিনি বলেন, আজকে সড়কে অন্যান্য দিনের তুলনায় রিকশার উপস্থিতি বেশি। আগে বাসা থেকে অফিসে যাওয়া-আসায় বাসভাড়া ৪০ টাকা লাগত। এখন রিকশায় যেতে ২০০ টাকার বেশি এবং ফেরার সময় ১৮০ টাকার মতো লাগে।

সাইফুল ইসলাম শ্যামলী রিং রোড এলাকায় রিকশা চালান। তিনি জানালেন, সকাল ৯টা থেকে অন্যান্য দিনের তুলনায় বেশি ভাড়া নিয়েছেন তিনি। তবে বেশির ভাগ যাত্রীই জরুরি কাজে বিভিন্ন গন্তব্যে গিয়েছেন বলে জানান তিনি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের ফুলবাড়িয়া জোনের সহকারী কমিশনার মোহাম্মদ সালাউদ্দিন বলেন, সোমবার থেকে ব্যাংক খুলে দেওয়ার পর সড়কে রিকশা, ব্যক্তিগত গাড়িসহ অন্যান্য যানবাহনের উপস্থিতি বাড়ে। তবে আজকে ব্যক্তিগত গাড়ির চাপ না থাকলেও রিকশার বেশ চাপ রয়েছে।

জরুরি চিকিৎসা সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা খন্দকার রনি নিজের মোটরসাইকেলে দাপ্তরিক কাজে খিলগাঁও থেকে গিয়েছিলেন সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। তিনি জানালেন, সড়কে অন্যান্য দিনের তুলনায় প্রচুর রিকশা ছিল। প্রতিটি চেকপোস্টেই পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে পড়তে হয়েছে।

ডিএমপির ট্রাফিক পুলিশের রমনা বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার মো. মিজানুর রহমান জানান, করোনার সঙ্গে ডেঙ্গুর প্রকোপও বেড়েছে। বাইরে থেকে আসা নাগরিকদের মধ্যে চিকিৎসা নিতে বিভিন্ন হাসপাতালে যাওয়া রোগীদের পাচ্ছি। তাঁরা অ্যাম্বুলেন্স, রিকশা বা ব্যক্তিগত গাড়িতে যাচ্ছেন। ট্রাফিকের রমনা বিভাগের আওতাধীন এলাকায় মোট ১২টি চেকপোস্ট রয়েছে জানিয়ে মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিনা প্রয়োজনে বাইরে আসা যানবাহনের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নিচ্ছি আমরা।’

রাজধানীর তেজগাঁওয়ে বিএসটিআই চেকপোস্টে সকাল থেকে বেলা দুইটা পর্যন্ত পাঁচটি মোটরসাইকেল ও একটি ব্যক্তিগত গাড়ির বিরুদ্ধে মামলা করেছে ট্রাফিক বিভাগ। মো. সোহেল নামের একজন মোটরসাইকেলচালক ট্রাফিক পুলিশকে জানান, তিনি তাঁর চাচাতো ভাইকে নিয়ে মাওয়া যাচ্ছেন। পুলিশের সন্দেহ হলে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি স্বীকার করেন যে তিনি এক হাজার টাকা ভাড়ার চুক্তিতে যাত্রী পরিবহন করছিলেন। সরকারি আদেশ অমান্য করায় তাঁকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

চেকপোস্টে দায়িত্ব পালনকারী ট্রাফিক সার্জেন্ট মাসুম কায়সার বলেন, আজকে সড়কে যানবাহন গত কয়েক দিনের তুলনায় অনেক বেড়েছে। তবে অনেকে মিথ্যা অজুহাতেও বাইরে এসেছেন। যৌক্তিক কারণ না দেখাতে পারলে সবার বিরুদ্ধেই মামলা দেওয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD