মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০০ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের প্রক্রিয়া স্থগিত – ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পথশিশুদের নিয়ে উদযাপন করলেন পুনাক সভানেত্রী সিলেট মহানগর আ.লীগের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যতিক্রমী জন্মদিন পালন করেছে দেওয়ান ফরিদ গাজী স্মৃতি সংসদ প্রধানমন্ত্রীর ৭৫তম জন্মদিনে সিলেট জেলা যুবলীগের দোয়া মাহফিল চলতি বছরও জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা হচ্ছে না : শিক্ষামন্ত্রী সিলেট জেলা আ.লীগ কর্তৃক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন পালিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মদিন পালন করেছে বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগ হৃদরোগে প্রাণ গেল ২১ কোটির সুলতানের! পা ভেঙে লোকালয়ে বিলুপ্ত বাজপাখি বানের পানি ঠেলে সন্তানকে নিয়ে পোলিও টিকাকেন্দ্রে বাবা! মুফতি কাজী ইব্রাহিম আটক ৬ দফা দাবিতে কোথায় যাবেন রাইড শেয়ারিং গ্রুপ সিলেট’র মানববন্ধন দেশে পৌঁছেছে ফাইজারের আরও ২৫ লাখ টিকা তেলের সংকটে অচল ব্রিটেন, সেনাবাহিনী ডাকার কথা ভাবছে সরকার
cloudservicebd.com

বাঁচানো গেল না বড়লেখায় স্বামীর দেওয়া আগুনে দগ্ধ সেই রহিমাকে

20210715 030355 - BD Sylhet News

বিডি সিলেট :: মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখায় উপজেলায় দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামের রফিক উদ্দিনের মেয়ে রহিমা বেগম (২০) স্বামীর দেওয়া আগুনে দগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান।(ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বুধবার (১৪ জুলাই) রাত দশটায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

রহিমার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তাঁর ছোট ভাই রাজু আহমদ। তিনি মুঠোফোনে বলেন,আমার বোন আর নেই। হাসপাতালের ডাক্তাররা অনেক চেষ্টা করেছেন। কিন্তু আমার বোনকে বাঁচানো গেল না।

বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার রহিমা বেগমের মৃত্যুর বিষয়টিও নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, রহিমা বেগম বুধবার রাতে মারা গেছেন। তাঁর লাশ সিলেট ওসমানী হাসপাতালে রয়েছে। সেখানে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির পরিবারের লোকজনের নির্যাতন সইতে না পেরে প্রায় সাত মাস আগে বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেন গৃহবধূ রহিমা বেগম। গত ৪ জুলাই ভোররাতে বাবার বাড়িতে ঘুমন্ত অবস্থায় রহিমার গায়ে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন স্বামী শিপন আহমদ। ঘটনার পরই তিনি পালিয়ে যান। এতে রহিমার হাত-মুখসহ শরীরের প্রায় ৬৩ শতাংশ পুড়ে যায়। রহিমার চিৎকার শুনে স্বজনরা তাঁকে দ্রুত উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় হাসপাতালের চিকিৎসকেরা তাঁকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতে তাঁকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নেওয়া হয়। সেখান থেকে আবার তাঁকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে পাঠানো হয়। এরপর ওই হাসপাতালেই রহিমার চিকিৎসা চলছিল। রহিমা বেগম চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার রাতে না ফেরার দেশে চলে যান।

এদিকে রহিমাকে পেট্রল ঢেলে আগুন ধরিয়ে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় রহিমার ভাই রাজু আহমদের দায়ের করা মামলায় রহিমার স্বামী শিপন আহমদ এবং শ্বাশুড়ি আনুরি বেগম কারাগারে রয়েছেন। শিপন আহমদ উপজেলার দক্ষিণভাগ দক্ষিণ ইউনিয়নের আরেঙ্গাবাদ গ্রামের মুকুল মিয়ার ছেলে।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD