শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:১৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
জগদীশ চন্দ্র দাসের বড় ভাইয়ের মৃত্যুতে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের শোক ডাঃ ফয়জুল ইসলামের মৃত্যুতে জেলা আওয়ামী লীগের শোক নিসচা জুড়ী শাখার কমিটি অনুমোদন : সভাপতি সাইফ, সম্পাদক জসিম ওসমানীনগরের আশ্রয়ন প্রকল্প পরিদর্শন করলেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ছাতকের দক্ষিণ খুরমা ইউপি সদস্য শাহ এমরান আহমদকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা একজনকে বাঁচাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে চারজনের মৃত্যু সরকারী ক্রয় ব্যবস্থা সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে সাংবাদিকদের ভূমিকা অপরিসীম-প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী কমলগঞ্জে প্রেম সংক্রান্ত জেরে বন্ধুর ছুরিকাঘাতে বন্ধু আহত বড়লেখা ঐক্য পরিষদের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নির্বাচিত হলেন; দেলোয়ার জুমা’র খুতবার সময় মসজিদে দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, নিহত ১ ছাত্রদলের কমিটিতে সভাপতির প্রেমিকা, সম্পাদকের স্ত্রী সমুদ্রে নামতে পর্যটকদের মানতে হবে ১০ নির্দেশনা ইভ্যালির চেয়ারম্যান শামীমা ও সিইও রাসেল তিন দিনের রিমান্ডে নিরাপত্তার কারণে পাকিস্তান সফর বাতিল করে দেশে ফিরছে নিউজিল্যান্ড সিরাজ বক্সের মাগফিরাত কামনায় মহানগর আ’লীগের উপদেষ্টা পরিষদের দোয়া মাহফিল
cloudservicebd.com

প্রতিবন্ধী শিশুর হাতে আগুনের ছ্যাঁকা দিলেন প্রধান শিক্ষক

20210714 155033 - BD Sylhet News

বিডি সিলেট ডেস্ক:: গাজীপুরের শ্রীপুরে বিল্লাল হোসেন (১০) নামে এক বুদ্ধিপ্রতিবন্ধি শিশুর হাতে ছ্যাঁকা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে এক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে। বিল্লাল হোসেন নিজমাওনা গ্রামের বুলবুলের ছেলে। সে ছোটকাল থেকেই বুদ্ধিপ্রতিবন্ধি।

অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের নাম মাইন উদ্দিন। তিনি শ্রীপুর উপজেলার নগরহাওলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। নিজমাওনা গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে তিনি।

ভুক্তভোগীর পরিবার বলেছে, নিজমাওনা কালারবাড়ী মোড় সংলগ্ন স্থানে গত সোমবার দুপুরে নির্মাণকাজ চালাচ্ছিলেন অভিযুক্ত শিক্ষক মাইন উদ্দিন। এসময় বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী বিল্লাল হোসেন তার নির্মাণকাজ দেখতে যান। একপর্যায়ে শিক্ষকের বাড়ির সাথে রাখা বালির উপর উঠে শিশুটি খেলতে শুরু করে। এ ঘটনায় শিক্ষক ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে শিশুটিকে মোড়ের রফিজ উদ্দিনের চায়ের দোকানের সামনে নিয়ে যান। পরে দোকানের চুলা থেকে আগুন নিয়ে শিশুটির হাত ঝলসে দেন। শিশুটির প্রচণ্ড কান্না করলে স্থানীয়রা এসে ক্ষত স্থানে পানি দিয়ে শিশুটিকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

স্থানীয় বাসিন্দা করিম বলেন, তারা বেশ কয়েকজন দোকানে বসে চা পান করছিলেন। এসময় শিক্ষক এই শিশুটিকে নিয়ে দোকানে প্রবেশ করেন। তারা কিছু বুঝে ওঠার আগেই শিশুটিকে হাতে ছ্যাঁকা দিয়ে দেন এই শিক্ষক। একজন শিক্ষকের এমন অমানবিক কাজে আমরা তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ করলে শিক্ষক ঘটনাস্থল থেকে চলে যান।

শিশুটির দাদা লাল মিয়া বলেন, ‘তার নাতি বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী। বুঝে না বুঝে হয়তো সে মাস্টারের বাড়ির কাজ দেখতে গিয়েছিল। তার জন্য কি এভাবে হাতে আগুনের ছ্যাঁকা দিয়ে দিবে।’ এ ঘটনার তিনি বিচার চান। তিনি আরও বলেন, ‘এ ঘটনার পর অভিযুক্ত শিক্ষক ও তার পিতা এসে এ ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়ে গেছেন। বেশি বাড়াবাড়ি করলে আবার দেখে নেওয়ারও হুমকি দিয়েছেন। তারা প্রভাবশালী, তাদের ভয়ে এখনো আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার সাহস পাচ্ছি না।’

এ বিষয়ে শ্রীপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার কামরুল হাসান বলেন, তিনি বিষয়টি জানতেন না। তবে এ খবর শোনা মাত্রই সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে। তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোফাজ্জল হোসেন বলেন, প্রাথমিক শিক্ষকদের দায়িত্বই হচ্ছে কোমলমতি শিশুদের আদর ভালোবাসার মাধ্যমে শিক্ষা দেওয়া। তবে একজন শিক্ষক যদি শিশুকে হাতে আগুনের ছ্যাঁকা দিয়ে থাকেন তা হলে তা নিন্দনীয় ঘটনা। তিনি তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নিবেন।

এ বিষয়ে শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোন্দকার ইমাম হোসেন বলেন, তিনি এ বিষয়ে কোনো অভিযোগ পাননি। অভিযোগ পেলে দ্রুত ব্যবস্থা নিবেন।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD