রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:৪৪ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
প্রতিবন্ধী রাজনের করুণ জীবিকাযুদ্ধ যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাবাহিনী প্রধান নির্বাচন সরকারের অধীনে নয়, নির্বাচন হয় কমিশনের অধীনে : তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বাংলাদেশে এসে গান গাইতে চান ‘মাগে হিতে’র শিল্পী সিলেটে আঞ্জুমানে মুফিদুল ইসলাম’র যাত্রা শুরু স্কটল্যান্ডে সহকর্মীর ছুরিকাঘাতে বিয়ানীবাজারের যুবক খুন মৌলভীবাজারে ভাইকে বাঁচাতে ভাইয়ের কিডনি দান সিলেট অনলাইন প্রেসক্লাবের নতুন সদস্য পদে আবেদন আহ্বান এসপিএল ২০২১ আয়োজক কমিটির সাথে ডা: শিপলুর মতবিনিময় সিলেটের করোনা যোদ্ধাদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রদান ‘মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্ম লীগের’ অনুষ্ঠান বন্ধ করলেন ওবায়দুল কাদের বিমানবন্দরে আরটি-পিসিআর ল্যাব স্থাপনের সাইট পরিদর্শনে প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কয়েসের পদ বহাল সিলেট জেলা আ’লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত টিকার দাবিতে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে প্রবাসীদের বিক্ষোভ
cloudservicebd.com

এক গাছে ১২১ জাতের আম!

FB IMG 1625321554738 - BD Sylhet News

বিডি সিলেট ডেস্ক:: একবার ভাবুন তো যে একই গাছের একটি ডালে ল্যাংড়া ঝুলছে, সেই গাছেরই আবার অন্য ডালে ঝুলে আছে আম্রপালি। আবার আম্রপালি থেকে চোখ সরতেই হয়তো দেখতে পাবেন পাতার ফাঁকে উঁকি মারছে ফজলি! এই বিরল দৃশ্য দেখতে হলে যেতে হবে প্রতিবেশী ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যের সাহারানপুরে।

জানা গেছে, সাহারানপুর জেলার কম্পানিবাগ অঞ্চলে রয়েছে হর্টিকালচার অ্যান্ড স্ট্যাডিং হার্ট। সেখানে গাছপালা নিয়ে নানা ধরনের গবেষণা চলে। এই গবেষণাকেন্দ্রেই সম্প্রতি একটি গাছে ১২১ জাতের আম ফলেছে।
কী কী আম ফলেছে ওই গাছে? দশেরি, ল্যাংড়া, চৌসা, রামকেলা, আম্রপালি, সাহারানপুর সৌরভ, সাহারানপুর গৌরব, সাহারানপুর অরুণ, সাহারানপুর বরুণ, সাহারানপুর রাজীবের মতো আম তো আছেই। এ ছাড়া লখনউ সফেদা, টমি অ্যাট কিংস, পুসা সৌর, সেনসেশন, রাতাউল, কলমি মালদা ম্যাঙ্গো, বোম্বে, স্মিথ, ম্যাগনিফেরা জালোনি, গোলা বুলন্দশহর, লারাঙ্কু, এলআর স্পেশাল, আলামপুর বেনিশা, আসোজিয়া দেওব্যান্ডের মতো আমও আছে ওই গাছে।

এই বিশেষ আমগাছের পরিচর্যার জন্য প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত লোক রাখা হয়েছে। কিভাবে সম্ভব হলো এই ফলন? এটা সম্ভব হয়েছে গ্রাফটিংয়ের দ্বারা। বিভিন্ন প্রজাতির আমগাছের ডাল ওই গাছটির ডালের সঙ্গে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে জুড়ে দেওয়া হয়েছে। পরবর্তী সময়ে সেগুলো থেকেই আলাদা প্রজাতির আম ফলেছে।

উদ্ভিদের ক্ষেত্রে গ্রাফটিং খুবই সাধারণ প্রক্রিয়া। সামান্য কিছু শিক্ষা থাকলেই নিজের বাড়িতে যেকোনো দুটি আলাদা গাছের ডালের মধ্যে গ্রাফটিং করা যায়। কিন্তু একটি গাছে এতগুলো আলাদা প্রজাতির গাছের ডাল জোড়া লাগানো মোটেও সহজ ছিল না। সাফল্যও মেলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে। গবেষণার ফল পেতে ১৫ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে গবেষকদের। গবেষণা এখনো চলছে। আরো উন্নত জাতের আম কিভাবে পাওয়া যায়, সেই চেষ্টা করছেন গবেষকরা। সূত্র : আনন্দবাজার।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD