সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০২:৩০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
সাবেক মেয়র কামরানের মৃত্যুবার্ষিকীতে পরিবারের বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ সিলেটে ১০টি ঘুমের ট্যাবলেট খাইয়ে আইনজীবী আনোয়ারকে হত্যা করেন স্ত্রী বিয়ানীবাজার থানার খসিরববন্দে বাড়ির সামনে থেকে অপহৃত মেয়েটি উদ্ধার সিলেট সীমান্তে ৪৮ বিজিবি’র ১৪৯ পরিবারকে খাদ্য সহায়াতা প্রদান সাবেক মেয়র কামরানের ১ম মৃত্যুবার্ষিকীতে সিলেট মহানগর আ.লীগের কর্মসূচী সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নাহিদ এমপি’র প্রচেষ্টায় চারখাইয়ে হাইওয়ে থানা হচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি সাধারন মানুষ সন্তুুষ্ঠ – শফিউল আলম নাদেল নিসচা’র কেন্দ্রীয় সহ সাংঠনিক সম্পাদক মিশুর সাথে বিয়ানীবাজার শাখার মতবিনিময় সভা সিলেট ৩ আসনের নৌকার মাঝি হাবিবকে ফুল দিয়ে বরণ করলেন এড.নাসির উদ্দিন খান বড়লেখায় নিসচার সংবর্ধনা অনুষ্ঠান ছয়ফুল আলম পারুল এর কাব্যগ্রন্থ ‘ছন্দপতন’র মোড়ক উন্মোচন সাবেক মেয়র মরহুম বদর উদ্দিন কামরানের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ও শিরনী বিতরণ হযরত শাহজালালের মাজারে এবারও ওরস হচ্ছে না আইনি সহযোগিতা মাধ্যেমে মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে – জগদীশ দাস স্কুল-কলেজে ছুটি আবার বাড়ল
cloudservicebd.com

বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন

20210605 125406 - BD Sylhet News

বিডি সিলেট :: সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের কার্করী কমিটির সভায় বিয়ানীবাজার ও গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগের কমিটি সর্বসম্মতি ক্রমে অনুমোদন দেয়া হয়েছে। আজ শনিবার (৫ জুন) জেলা পরিষদের হল রুমে কার্যকরী কমিটির সভায় এ দুটি উপজেলা কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়।

তবে কমিটির দুজন ব্যাপারে বিষদ আলোচনা শেষে একজনের ব্যাপারে সিধান্ত হলেও অপরজনের বিষয়ে বোন সিধান্ত না নিয়ে তা মুলতবি রাখা হয়।উপজেলা সভাপতি ও সধারন সম্পাদকের সাথে কথা বলে সিধান্ত নেয়া হবে বলে জানা যায়।

বিশ্বস্ত সূত্রমতে, জেলা নেতাদের মতামতকে প্রাধান্য নিয়ে গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের দেয়া প্রস্তাবিত কমিটি রদবদল করা হয়েছে। এতে সর্বশেষ বৈঠকে বিয়ানীবাজারে ৫ জন ও গোলাপগঞ্জে ১৪ জনকে বিয়োজন ও সংযোজন করা হয়। জেলা নেতাদের হস্তক্ষেপে গঠিত কমিটি বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মেনে নিলেও গোলাপগঞ্জের শীর্ষ দু’নেতা কোন প্রতিক্রিয়া দেখাননি।

প্রস্তাবিত এ দু’কমিটিতে ইতোমধ্যে সম্মতিসূচক স্বাক্ষর করেছেন জেলা কমিটিতে রয়েছেন বিয়ানীবাজারের ৬ জন ও গোলাপগঞ্জের ৫ জন। আজকের মিটিংয়ে জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের মধ্যে বড় ধরনের কোন মতপার্থক্য দেখা না দিলে বিতর্ক ছাড়াই প্রস্তাবিত এ দু’কমিটি পাস হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। জেলা আওয়ামী লীগের পদধারী একাধিক নেতা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের গাইড লাইন অনুযায়ী ৭১ সদস্য বিশিষ্ট প্রস্তাবিত পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করেন দলের বিয়ানীবাজার উপজেলা সভাপতি আতাউর রহমান খান ও সাধারণ সম্পাদক দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল। এ কমিটিতে পুরনোদের পাশাপাশি রাজপথের পরীক্ষিত সাবেক ছাত্রনেতাদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়। কিন্তু নানাবিধ কারণে কয়েক দফায় কমিটির রূপরেখা রদবদল করা হয়েছে। এরপর গত মার্চে জেলার দপ্তর সেলে কমিটি পাঠানো হয়। পরবর্তীতে এ নিয়ে নানা বিতর্ক দেখা দেয়। সর্বশেষ গত ২ এপ্রিল রাতে জেলা কমিটিতে আছেন বিয়ানীবাজারের এমন ৭ নেতার গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক হয়। এ বৈঠকে উপজেলা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সূত্রমতে, দীর্ঘ আলোচনা শেষে ঐক্যমতের ভিত্তিতে সদস্য পদে ময়নুল হোসেন, আরবাব হোসেন খান, কামাল আহমদ, পাভেল মাহমুদ ও ইকবাল হোসেন তারেক এর নাম প্রস্তাবিত কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও দলের জেলা সদস্য মোহাম্মদ জাকির হোসেন বলেন, যোগ্য নেতাকর্মীদের সমন্বয়ে প্রস্তাবিত কমিটি অত্যন্ত সুন্দরভাবে করা হয়েছে। তিনি বলেন, জেলা মিটিংয়ে এ কমিটি আজ অনুমোদন হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। এলক্ষ্যে আমরা জোরালো ভূমিকা রাখবো।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, ৭১ সদস্য বিশিষ্ট প্রস্তাবিত কমিটির মধ্যে ৯ জন সহসভাপতির প্রত্যেকেই আগের কমিটিতে বিভিন্ন পদে ছিলেন। তারা হলেন, সিনিয়র সহসভাপতি পদে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল আহাদ কলা মিয়া, সহ সভাপতি আহমদ হোসেন বাবুল, বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন হেলাল চৌধুরী, আলহাজ শামছ উদ্দিন খান, আলহাজ নাজিম উদ্দিন, হাজি মোশতাক আহমদ, ছালেহ আহমদ বাবুল, আশরাফুল ইসলাম আশরাফ ও আব্দুল খালিক।

প্রস্তাবিত এ কমিটির ৩ জন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে শুধুমাত্র হারুনুর রশিদ দিপু বিগত কমিটির প্রচার সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া দুই নতুন মুখ হলেন, বিয়ানীবাজার পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মো. আব্দুস শুকুর এবং বিয়ানীবাজার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সভাপতি আবুল কাশেম পল্লব।

সাংগঠনিক সম্পাদক পদের ৩ জন এবার উপজেলা আওয়ামী লীগে প্রথম স্থান পেয়েছেন। নেতারা হলেন, মুড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ হোসেন খান, বিয়ানীবাজার উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক আহবায়ক ও বিয়ানীবাজার সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদ ’৯৫ এর এজিএস ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জামাল হোসেন।

বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আতাউর রহমান খান বলেন, নবীন ও প্রবীণ নেতাদের দিয়ে আমরা কমিটি করেছি। এতে জেলার নির্দেশনা অনুযায়ী দলের ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এবং একঘরে দু’জন পাদ পাননি। এজন্য যারা বাদ পড়েছেন তারা নিরাশ এবং মনোক্ষুণ্ন হবেন, এটাই স্বাভাবিক। তবে, আমরা তাদেরকে রাজনীতিতে অবশ্যই মূল্যায়ন করবো। তিনি বলেন, আমরা আশাবাদী, আজকের মিটিংয়ে বিয়ানীবাজার আওয়ামী লীগের কমিটি অনুমোদন হবে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ১৪ নভেম্বর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে সরাসরি ভোটে আতাউর রহমান খান সভাপতি ও দেওয়ান মাকসুদুল ইসলাম আউয়াল সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

এদিকে, গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে শুরু থেকেই বিভিন্ন মাধ্যমে সবচেয়ে বেশি আলোচনা সমালোচনা হয়েছে। দলের সভাপতি এডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক রফিক আহমদ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে জেলায় কমিটি প্রেরণ করেন। এতে বিতর্কিত কয়েকজনকে অন্তর্ভুক্ত করায় জেলায় অভিযোগসহ নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়।

সর্বশেষ তথ্যমতে, গত বুধবার রাতে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতে আছেন গোলাপগঞ্জের অধিবাসী ৫ নেতা ও জেলার দায়িত্বশীল দু’নেতার গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। তবে, এ বৈঠকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত হননি।

বৈঠক সূত্রমতে, প্রস্তাবিত কমিটি আলোচনা পর্যালোচনা শেষে দ্বিতীয় সহ সভাপতি লুৎফুর রহমানকে সিনিয়র সহ সভাপতি এবং নতুন করে জহির উদ্দিনকে সহ সভাপতি করা হয়। এছাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মনসুর চৌধুরীকে সহ প্রচার, এডভোকেট আব্দুল আহাদ বাবলুকে বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এবং উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম এ ওয়াদুদ এমরুল ও তারেক আহমদকে নতুন করে সদস্য পদে রাখা হয়।

এরপর উপস্থিত জেলা নেতারা ঐক্যমতের ভিত্তিতে কিছুটা রদবদল করে নতুন কমিটি গঠন করেন।
জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শাহিদুর রহমান চৌধুরী জাবেদ বলেন, ত্যাগী নেতাকর্মীদের সমন্বয়ে সবার কাছে মোটামুটি গ্রহণযোগ্য প্রস্তাবিত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আমরা চেষ্টা করব আজকের মিটিংয়ে যাতে নেতাকর্মীদের কাক্সিক্ষত কমিটি অনুমোদন হয়।

একাধিক সূত্রমতে, প্রস্তাবিত এ কমিটির অপর ৭ সহসভাপতি হলেন মুবিন আহমদ জায়গীরদার, রফিক আহমদ মাখন, ইউপি চেয়ারম্যান মস্তাব উদ্দিন কামাল, রুকন উদ্দিন, জিল্লুর রহমান, আবুল ফজল চৌধুরী সাহেদ, মাহমুদ চৌধুরী।
কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক পদে কোন রদবদল করা হয়নি। যুগ্ম সম্পাদক ৩ জন হলেন, মিজানুর রহমান রিংকু, দেলওয়ার হোসেন চুনু ও আকবর আলী ফখর।

সাংগঠনিক সম্পাদক ৩ জন হলেন, খোরশেদ আলম চৌধুরী রিপন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ হাছিন আহমদ মিন্টু ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি খায়রুল হক। এছাড়া সহ সম্পাদক পদে ১৯ জন এবং সদস্য পদে ৩৫ জনকে রাখা হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ১৩ নভেম্বর গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এর একমাস পর ১৮ ডিসেম্বর পুনরায় এডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরী সভাপতি ও রফিক আহমদকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করে জেলা আওয়ামী লীগ।

এ বিষয়ে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মো. নাসির উদ্দিন খান বলেন, কার্যকরী কমিটির সভায় গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত পূর্ণাঙ্গ কমিটি নিয়ে আলোচনা হবে। এছাড়া দলীয় বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। সভায় দু’উপজেলা কমিটি অনুমোদন হবে কি-না, এ বিষয়ে তিনি স্পষ্ট কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD