সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
সাবেক মেয়র কামরানের মৃত্যুবার্ষিকীতে পরিবারের বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ সিলেটে ১০টি ঘুমের ট্যাবলেট খাইয়ে আইনজীবী আনোয়ারকে হত্যা করেন স্ত্রী বিয়ানীবাজার থানার খসিরববন্দে বাড়ির সামনে থেকে অপহৃত মেয়েটি উদ্ধার সিলেট সীমান্তে ৪৮ বিজিবি’র ১৪৯ পরিবারকে খাদ্য সহায়াতা প্রদান সাবেক মেয়র কামরানের ১ম মৃত্যুবার্ষিকীতে সিলেট মহানগর আ.লীগের কর্মসূচী সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নাহিদ এমপি’র প্রচেষ্টায় চারখাইয়ে হাইওয়ে থানা হচ্ছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রতি সাধারন মানুষ সন্তুুষ্ঠ – শফিউল আলম নাদেল নিসচা’র কেন্দ্রীয় সহ সাংঠনিক সম্পাদক মিশুর সাথে বিয়ানীবাজার শাখার মতবিনিময় সভা সিলেট ৩ আসনের নৌকার মাঝি হাবিবকে ফুল দিয়ে বরণ করলেন এড.নাসির উদ্দিন খান বড়লেখায় নিসচার সংবর্ধনা অনুষ্ঠান ছয়ফুল আলম পারুল এর কাব্যগ্রন্থ ‘ছন্দপতন’র মোড়ক উন্মোচন সাবেক মেয়র মরহুম বদর উদ্দিন কামরানের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ও শিরনী বিতরণ হযরত শাহজালালের মাজারে এবারও ওরস হচ্ছে না আইনি সহযোগিতা মাধ্যেমে মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে – জগদীশ দাস স্কুল-কলেজে ছুটি আবার বাড়ল
cloudservicebd.com

এবার অর্ধেক দামেও ক্রেতা মিলছে না তরমুজের!

20210516 034048 - BD Sylhet News

বিডি সিলেট ডেস্ক::  রমজানে খুলনায় বিক্রি হওয়া ফলের তালিকায় প্রথমেই ছিল তরমুজ। রসালো ফল হওয়ায় প্রচণ্ড গরমে বাড়তি আগ্রহ ছিল তরমুজের উপর। দামও ছিল আকাশচুম্বী। কিন্তু মাত্র দুইদিনের ব্যবধানে সেই তরমুজের দাম নেমে এসেছে অর্ধেকে।

ব্যবসায়ীরা জানান, রমজান ও দাবদাহের কারণে কিছুদিন আগেও তরমুজ প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ৫০ টাকায়। আর এখন তা ২৫ টাকায়ও নিতে চাচ্ছেন না ক্রেতারা। বাজার ক্রেতা শূন্য থাকায় আড়ত ও খুচরা দোকানিরা অলস সময় পার করছেন।

খুলনার কাঁচা ও পাকা ফলের আড়তের মার্কেট হিসেবে পরিচিত পুরাতন রেল স্টেশন ঘুরে দেখা যায়, তরমুজের আড়তগুলোতে ভিড় নেই ক্রেতাদের। আড়তদার ও কর্মচারীদের অলস সময় পার করতে দেখা গেছে।

নগরীর ময়লাপোতা মোড়ের তরমুজ বিক্রেতা মো. সোহাগ হাওলাদার জানান, এক সপ্তাহ ধরে ফলটির দাম কমেছে। তিনি প্রতি পিস ১২০ থেকে ১৫০ টাকার মধ্যে বিক্রি করেন। তার দোকানে তরমুজের আমদানি বেশি। কিন্তু ক্রেতাদের আগ্রহ কম থাকায় গত দুইদিন তরমুজের বেচাকেনা খুব কম।

ডাকবাংলা মোড়ের ফল বিক্রেতা আসাদুল, তসলিম উদ্দিন, রইসুলরা জানান, রোজার সময় তরমুজের ব্যবসা ভাল ছিল। গত দুইদিন আগ থেকে বেচাকেনা পড়ে গেছে। তবে বাজারে যে ১২ মাসি কালো তরমুজ রয়েছে সেটির দাম এখনো চড়া । এটি প্রতি কেজি ৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

কাঁচা ও পাকা ফলের আড়ত দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হায়দার পটোয়ারী জানান, বাজারে পাকা আম আসতে শুরু করেছে। নতুন ফলের জন্য ক্রেতারা এখন তরমুজের প্রতি আগ্রহ কমিয়ে দিয়েছেন।

দুপুরে ডাকবাংলায় তরমুজ ক্রেতা আবু শাহাদাৎ রনি জানান, তরমুজের দাম এখনও সহনীয় পর্যায়ে আসেনি। দুই বছর আগেও তিনি ১৫ টাকা দরে তরমুজ ক্রয় করেছেন। তবে এবার তরমুজের দাম রোজার মাসে যেভাবে বেড়েছিল তা তিনি গত বছরও দেখেনি।

শেয়ার করুন...
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  


বিডি সিলেট নিউজ মিডিয়া গ্রুপ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। © ২০২১
Design & Developed BY Cloud Service BD